• NEWS PORTAL

  • মঙ্গলবার, ০৯ আগস্ট ২০২২ | ২৫ শ্রাবণ ১৪২৯

জাদুঘরে অনুষ্ঠিত হলো ১১ দিনব্যাপী জাতীয় ক্যালিগ্রাফি প্রদর্শনী

প্রকাশিত: ২১:২৩, ২৭ জুন ২০২২

ফন্ট সাইজ
জাদুঘরে অনুষ্ঠিত হলো ১১ দিনব্যাপী জাতীয় ক্যালিগ্রাফি প্রদর্শনী

একটি মানবশিশু প্রকৃত মানুষ হিসেবে এমনি এমনি গড়ে ওঠে না। তার জন্য প্রয়োজন শিক্ষা ও প্রশিক্ষণ। শিক্ষার সাথে শিল্পের যোগ মানুষকে সুসভ্য করে। তাই শিক্ষা সংস্কৃতি ও শিল্পের বিকাশ ছাড়া মানব সমাজের বিকাশ সম্ভব নয়। যিনি যা ধারণ করেন,তাই তার ধর্ম। নিঃসন্দেহে ইসলাম আধুনিক ও প্রগতিশীল ধর্ম। ইসলামের সাথে শিল্প-সংস্কৃতি ও সভ্যতার নিবিড় সম্পর্ক অস্বীকার করার অর্থ এই শান্তির ধর্মকেই অস্বীকার করা বলে মন্তব্য করেছেন এশিয়ান ইউনিভার্সিটি অফ বাংলাদেশ এর উপাচার্য প্রফেসর ড. আবুল হাসান এম সাদেক। 

বাংলাদেশ চারুশিল্পী পরিষদের উদ্যোগে জাতীয় জাদুঘরের বেগম সুফিয়া কামাল মিলনায়তনে ১৮ জুন থেকে চলা ১১দিনব্যাপী ১ম জাতীয় ক্যালিগ্রাফি প্রদর্শনীতে তিনি একথা বলেন। ক্যালিগ্রাফি প্রদর্শনীর মাধ্যমে নতুন প্রজন্ম ইসলামের সৌন্দর্যের সাথে পরিচিত হওয়ার সুযোগ পাবে বলেও মনে করেন তিনি।

চারুশিল্পী পরিষদের সভাপতি চিত্রশিল্পী ইব্রাহীম মন্ডলের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন জাতীয় যাদুঘরের সাবেক পরিচালক ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগের সাবেক চেয়ারম্যান প্রফেসর ড. নাজমা খান মজলিস, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা অনুষদের শিক্ষক প্রফেসর ড. মিজানুর রহমান ফকির, দেশীয় সাংস্কৃতিক সংসদের আহবায়ক আ জ ম ওবায়েদুল্লাহ, দেশীয়র সমন্বয়ক শিল্পী মোস্তফা মনোয়ার, বাংলাদেশ সঙ্গীতকেন্দ্রের সভাপতি শিল্পী তোফাজ্জল হোসাইন খান, বাংলাদেশ কালচারাল একাডেমির সভাপতি শরীফ বায়জীদ মাহমুদ, সাহিত্য সংস্কৃতি কেন্দ্র এর সহ সভাপতি জাকিউল হক জাকি, প্যানভিশন টিভির সিইও মাহবুব মুকুল প্রমুখ। 

অনুষ্ঠানে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাচ্যকলা বিভাগের সাবেক চেয়ারম্যান বরেণ্য চিত্রশিল্পী ড. আব্দুস সাত্তারকে বাংলাদেশ চারুশিল্পী পরিষদের পক্ষ থেকে সম্মাননা পদক প্রদান করা হয়।  প্রদর্শনী উপলক্ষে প্রকাশিত স্মারকের মোড়ক উন্মোচনও করেন অতিথিবৃন্দ। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন চারুশিল্পী পরিষদের সভাপতি ইব্রাহীম মন্ডল। ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন চারুশিল্পী পরিষদের সেক্রেটারি মোহাম্মদ আবদুর রহিম। 

অনুষ্ঠানে বক্তারা বলেন-বাংলাদেশ চারুশিল্পী পরিষদের আয়োজন আমাদেরকে বিমোহিত করেছে। সভ্যতার ইতিহাসে ইসলামী শিল্পকলাকে সমৃদ্ধ করবার জন্য তাদের এই প্রচেষ্টা নিঃসন্দেহে প্রশংসার দাবিদার। যেসব শিল্পী বন্ধুরা দেশের বিভিন্ন প্রান্তর থেকে এই আয়োজনের সাথে সম্পৃক্ত থেকে আয়োজনকে সফল ও সার্থক করে তুলতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা করেছেন তাদের প্রতি অকৃত্রিম ভালোবাসা। চারুশিল্পী পরিষদের এই ক্যালিগ্রাফি প্রদর্শণী নিশ্চয় একটি শক্তিশালী ক্যালিগ্রাফি আন্দোলনে রূপ দেবে। 

পদকপ্রাপ্ত বরেণ্য শিল্পী ড. আব্দুস সাত্তার তার অনুভূতি প্রকাশ করতে গিয়ে বলেন, বাংলাদেশ চারুশিল্পী পরিষদ আমাকে যেভাবে সম্মানিত করলো সে অনুভূতি প্রকাশের ভাষা আমার নাই। আমার কাঁধে আরও বেশি দায়িত্ব চেপে বসলো। আমি যেন আমৃত্যু এই শিল্পের সাথে নিজেকে সম্পৃক্ত রাখতে পারি সেই তাওফিক কামনা করছি সকলের কাছে। 

উল্লেখ্য, দেশের খ্যাতিমান ৭৫ জন নবীন- প্রবীণ শিল্পীর অংশগ্রহণে জাতীয় জাদুঘরে “নলিনীকান্ত ভট্টশালী” গ্যালারীতে ১৮ জুন শুরু হয় ১১ দিন ব্যাপী জাতীয় ক্যালিগ্রাফি প্রদর্শনী। যা শেষ হবে আগামীকাল ২৮ জুন বিকেলে। 

বিভি/কেএস

বিভি/কেএস

মন্তব্য করুন: