• NEWS PORTAL

  • মঙ্গলবার, ০৯ আগস্ট ২০২২ | ২৫ শ্রাবণ ১৪২৯

বাজেটে পাচার হওয়া স্থাবর ও অস্থাবর সম্পদ দেশে আনার সুযোগ বাতিল

প্রকাশিত: ২১:৩৮, ৩০ জুন ২০২২

আপডেট: ২২:১১, ৩০ জুন ২০২২

ফন্ট সাইজ
বাজেটে পাচার হওয়া স্থাবর ও অস্থাবর সম্পদ দেশে আনার সুযোগ বাতিল

প্রস্তাবিত ২০২২-২০২৩ অর্থবছরের জাতীয় বাজেটে পাচার হওয়া স্থাবর ও অস্থাবর সম্পদ দেশে আনার ক্ষেত্রে যে সুযোগ রাখা হয়েছিল তা বাতিল করে চলতি অর্থবছরের জন্য ৬ লাখ ৭৮ হাজার ৬৪ কোটি টাকার বাজেট পাস করা হয়েছে। অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামালের প্রস্তাবিত বাজেট শুক্রবার (১ জুলাই) থেকে বাস্তবায়ন শুরু হবে। বাজেটে ঘাটতির পরিমাণ ২ লাখ ৪৫ হাজার ৬৪ কোটি টাকা।

বৃহস্পতিবার ( ৩০ জুন) স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধরীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত বাজেট সমাপনী অধিবেশনে সংসদ সদস্যদের সর্বসম্মত কণ্ঠভোটে ২০২২-২০২৩ অর্থবছরের বাজেট পাস হয়। 

অর্থমন্ত্রী তাঁর বাজেট বক্তৃতায় বলেন, প্রস্তাবিত বাজেটে পাচার হওয়া স্থাবর ও অস্থাবর সম্পদ দেশে আনার ক্ষেত্রে যে সুযোগ রাখা হয়েছিল তা বাতিল করা হয়েছে। তবে কেউ ঘোষণা দিয়ে নগদ অর্থ আনতে পারবে। সে ক্ষেত্রে সাড়ে ৭ শতাংশ কর দিয়ে তা আনার সুযোগ রাখা হয়েছে। একই সঙ্গে কম হারে করপোরেট কর সুবিধা পাওয়ার ক্ষেত্রেও সংশোধন আনা হয়েছে। যেসব কোম্পানি বছরে ৩৬ লাখ টাকার বেশি ব্যাংকের মাধ্যমে লেনদেন করবে, তারা কম হারে করপোরেট কর পরিশোধের সুবিধা পাবে। প্রস্তাবিত বাজেটে এই সীমা ছিল বছরে ১২ লাখ টাকা।

এ ছাড়া সব সেবার ক্ষেত্রে ই-টিআইএন (করদাতা শনাক্তকরণ নম্বর) যুক্ত করে রিটার্ন দাখিলের যে বাধ্যবাধকতা ছিল তাতেও ছাড় দেয়া হয়েছে। কেবল ব্যক্তি শ্রেণির করদাতাদের জন্য রিটার্ন দাখিল বাধ্যতামূলক করা হয়েছে।

২০২২-২০২৩ অর্থবছরের বাজেটে ব্যয়ের আকারসহ অন্যান্য মৌলিক ইস্যুতেগুলোতে কোনো পরিবর্তন আনা হয়নি। বাজেটের সমাপনী অধিবেশনেও ৬ লাখ ৭৮ হাজার ৬৪ কোটি টাকার ব্যয়ের বাজেট জাতীয় সংসদে পাস হয়েছে। এর মধ্যে পরিচালনসহ অন্যান্য খাতে ব্যয় করা হবে মোট ৪ লাখ ৩১ হাজার ৯৯৮ কোটি টাকা এবং বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচিতে ব্যয় করা হবে ২ লাখ ৪৬ হাজার ৬৬ কোটি টাকা।

এবার অর্থমন্ত্রীর প্রস্তাবিত বাজেটে ঘাটতি রাখা হয়েছে ২ লাখ ৪৫ হাজার ৬৪ কোটি টাকা, যা মোট দেশজ উৎপাদনের (জিডিপি) ৫ দশমিক ৬ শতাংশের সমান। ঘাটতির মধ্যে অনুদানসহ বৈদেশিক উৎস থেকে সংগ্রহ করা হবে ৯৮ হাজার ৭২৯ কোটি টাকা। আর অভ্যন্তরীণ উৎস থেকে নেয়া হবে ১ লাখ ৪৬ হাজার ৩৩৫ কোটি টাকা, যেখানে ব্যাংক খাত থেকে নেয়া হবে ১ লাখ ৬ হাজার ৩৩৪ কোটি টাকা।

ঘাটতির অংক ছাড়া বাকিটা আসবে রাজস্ব আয় করার মাধ্যমে। এর লক্ষ্যে রাজস্ব আয়ের লক্ষ্যমাত্রা দেয়া হয়েছে ৪ লাখ ৩৩ হাজার কোটি টাকা। এর মধ্যে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) সংগ্রহ করা কর রাজস্বের মাধ্যমে আয় করা হবে ৩ লাখ ৭০ হাজার কোটি টাকা। এই আয় আসবে মূলত আয়কর, ভ্যাট এবং আমদানি ও রপ্তানি শুল্ক থেকে। এনবিআর-বহির্ভূত কর থেকে আসবে ১৮ হাজার কোটি টাকা আর কর ছাড়া প্রাপ্তি ধরা হয়েছে ৪৫ হাজার কোটি টাকা।

ভোক্তাকে মূল্যস্ফীতি থেকে সুরক্ষা দেয়ার লক্ষ্য রয়েছে এই বাজেটে। এ জন্য অর্থমন্ত্রী আগামী বছরজুড়ে দেশের মূল্যস্ফীতিকে ৫ দশমিক ৬ শতাংশের মধ্যে রাখার লক্ষ্য নিয়ে তার আর্থিক ব্যবস্থাপনা পরিচালনা করবেন বলে জানিয়েছেন তিনি।

পরিচালন ও উন্নয়ন বাজেটের আওতায় কোন খাতে সম্পদের কী পরিমাণ ব্যয় করবেন সেটিও স্পষ্ট করেছেন অর্থমন্ত্রী মুস্তফা কামাল। এর মধ্যে সামাজিক নিরাপত্তা ও কল্যাণে মোট সম্পদের ৫ দশমিক ৫ শতাংশ, কৃষিতে ৬ দশমিক ২ শতাংশ, স্বাস্থ্যে ৫ দশমিক ৪ শতাংশ, জ্বালানি ও বিদ্যুতে ৩ দশমিক ৮ শতাংশ, সুদ পরিশোধে ১১ দশমিক ৯ শতাংশ, শিক্ষা ও প্রযুক্তিতে ১৪ দশমিক ৭ শতাংশ, পরিবহন ও যোগাযোগে ১২ শতাংশ, স্থানীয় সরকার ও পল্লী উন্নয়নে ৬ দশমিক ৬ শতাংশ ও জনপ্রশাসন ব্যয়ে ১৯ দশমিক ৯ শতাংশ।

এ ছাড়া জনশৃঙ্খলা ও নিরাপত্তা খাতে ৪ দশমিক ৬ শতাংশ, গৃহায়ণে ১ শতাংশ, বিনোদন ও সংস্কৃতি এবং ধর্মে শূন্য দশমিক ৮ শতাংশ, শিল্প ও অর্থনৈতিক সার্ভিসে শূন্য দশমিক ৬ শতাংশ এবং বিবিধ খাতে ১ দশমিক ১ শতাংশ ব্যয় করার ছক তৈরি করেছেন অর্থমন্ত্রী।

বিভি/এইচএস

মন্তব্য করুন: