• NEWS PORTAL

  • বুধবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২২

বাংলাদেশ দূতাবাসের উদ্যোগে মালয়েশিয়ায় জাতীয় শোক দিবস পালিত

মো: আরিফুজ্জামান

প্রকাশিত: ২০:০৩, ১৫ আগস্ট ২০২২

আপডেট: ২০:০৪, ১৫ আগস্ট ২০২২

ফন্ট সাইজ
বাংলাদেশ দূতাবাসের উদ্যোগে মালয়েশিয়ায় জাতীয় শোক দিবস পালিত

মালয়েশিয়ায় বাংলাদেশ দূতাবাসের উদ্যোগে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৭তম শাহাদত বার্ষিকী ও জাতীয়
শোক দিবস পালিত হয়েছে।

মালয়েশিয়ায় নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মো. গোলাম সরোয়ার সোমবার (১৫ আগস্ট) স্থানীয় সময় সকাল ১০টায় দূতাবাস প্রাঙ্গণে জাতীয় পতাকা অর্ধনমিত করে ও জাতির পিতার প্রতিকৃতিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানানোর মাধ্যমে কর্মসূচি শুরু করেন। দিবসটি উপলক্ষ্যে মো. গোলাম সারোয়ারের সভাপতিত্বে দূতাবাস প্রাঙ্গণে বঙ্গবন্ধু ও তাঁর পরিবারের শহীদদের স্মৃতির প্রতি গভীর শ্রদ্ধা নিবেদন করে এক মিনিট নীরবতা পালন এবং দেশ ও জাতির কল্যাণ কামনা করে মোনাজাত করা হয়। অনুষ্ঠানে রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী, পররাষ্ট্র মন্ত্রী ও পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী কর্তৃক প্রদত্ত বাণী পাঠ ও প্রামাণ্য চিত্র প্রদর্শন করা হয়।

অনুষ্ঠানে মো. গোলাম সারোওয়ার বলেন, '১৫ আগস্ট বাঙালি জাতির ইতিহাসে মর্মান্তিক ও বেদনাদায়ক ঘটনা এবং কলঙ্কময় দিন। জাতির পিতা সারাটা জীবন জেল, জুলুম ও অত্যাচার উপেক্ষা করে তার অসাধারণ-অসামান্য বীরোচিত নেতৃত্বগুণে বিশ্বদরবারে বাংলাদেশ নামক একটি স্বাধীন রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা করেন। যুদ্ধবিধ্বস্ত বাংলাদেশকে বিনির্মাণে তার বুদ্ধিদীপ্ত সংগ্রামমুখর জীবনের অভিজ্ঞতাকে কাজে লাগিয়ে যাবতীয় প্রতিকূলতা সত্ত্বেও সামনের দিকে এগিয়ে নিয়ে গেছেন। বহির্বিশ্বে স্বাধীন বাংলাদেশকে নিরপেক্ষ, শান্তিকামী ও উন্নয়নমুখী দেশ হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করেছেন। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্টে জাতির পিতাকে হত্যা করার মাধ্যমে দেশের উন্নয়নের গতিধারা রুদ্ধ
হয় এবং স্বাধীনতার মূল চেতনা থেকে জাতিকে বিচ্যুত করার অপচেষ্টা করে।'

তিনি আরও বলেন, 'জাতির পিতার স্বপ্নের সোনার বাংলা বিনির্মাণে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকার ভিশন ২০২১, ভিশন ২০৪১ এবং ডেল্টা প্লান ২১০০ বাস্তবায়ন করছে। ইতোমধ্যে বাংলাদেশ স্বল্পোন্নত থেকে মধ্যম আয়ের দেশে উন্নীত হয়েছে।'

এ সময় মালয়েশিয়ায় বসবাসরত প্রবাসী বাংলাদেশিদের হুন্ডি কিংবা অবৈধ পন্থায় রেমিট্যান্স না পাঠানোর আহ্বান জানান মোঃ গোলাম সারোয়ার। 

অনুষ্ঠানে রাষ্ট্রপতির বাণী পাঠ করেন দূতাবাসের মিনিস্টার (শ্রম) নাজমুস সাদাত সেলিম, প্রধানমন্ত্রীর বাণী পাঠ করেন কাউন্সেলর (বাণিজ্যিক) মো. রাজিবুল আহসান, পররাষ্ট্রমন্ত্রীর বাণী পাঠ করেন দূতাবাসের প্রথম সচিব (পাসপোর্ট ও ভিসা) মিয়া মোহাম্মদ কিয়াম উদ্দিন, এবং পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীর বাণী পাঠ করেন প্রথম সচিব (রাজনৈতিক) রেহেনা পারভীন ।

বিভি/জোহা

মন্তব্য করুন: