• মঙ্গলবার, ৩০ নভেম্বর ২০২১ | ১৫ অগ্রাহায়ণ ১৪২৮

BVNEWS24 || বিভিনিউজ২৪

পিপিই উৎপাদনে বেক্সিমকো’র সংগে যুক্ত হলো জাপানের কে২ লজিস্টিক্স

প্রকাশিত: ১৭:৫৮, ২৪ নভেম্বর ২০২১

আপডেট: ১৮:২৩, ২৪ নভেম্বর ২০২১

ফন্ট সাইজ
পিপিই উৎপাদনে বেক্সিমকো’র সংগে যুক্ত হলো জাপানের কে২ লজিস্টিক্স

করোনাভাইরাস মোকাবিলায় পিপিই ও মাস্ক উৎপাদনে দেশীয় প্রতিষ্ঠান বেক্সিমকো হেলথ-এর সংগে চুক্তি স্বাক্ষর করলো জাপানের কেটু (কে২) লজিস্টিক্স। চুক্তির আওতায় পিপিই উৎপাদন ও গুণগত মান নিয়ন্ত্রণ সম্পর্কিত পরামর্শ বিনিময় করবে দুই প্রতিষ্ঠান। 

বুধবার (২৪ নভেম্বর) সাভারে বেক্সিমকো পিপিই পার্কে বাংলাদেশে নিযুক্ত জাপানের রাষ্ট্রদূত নাউকি ইতো’র উপস্থিতিতে এই চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়। এর আগে পার্কটি ঘুরে দেখেন জাপানের রাষ্ট্রদূত।
 
বেক্সিমকো গ্রুপের চেয়ারম্যান এ. এস. এফ. রহমান-এর পরিচালনায় অনুষ্ঠানে বেক্সিমকো গ্রুপের পক্ষে ডিরেক্টর ও সিইও সৈয়দ নাভেদ হোসেন ও বেক্সিমকো পিপিই লিমিটেডের এক্সিকিউটিভ ডিরেক্টর ডা. মহিদুস সামাদ খান উপস্থিত ছিলেন। জাপানের পক্ষ থেকে ছিলেন ইতোচু ঢাকা অফিসের জিএম ও জাপানিজ অ্যাসোসিয়েশনের প্রেসিডেন্ট তেতসুরো কানো, মারুবেনি ঢাকা অফিসের জিএম ও জাপানিজ কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি অ্যাসোসিয়েশনের প্রেসিডেন্ট হিকারু কায়াই, জাইকা বাংলাদেশের চীফ রিপ্রেজেন্টেটিভ ইউহো হায়াকায়া, জেট্রো ঢাকা অফিসের চীফ রিপ্রেজেন্টেটিভ ইউজো আন্ডো, কেটু লজিস্টিক বাংলাদেশ লিমিটেডের উপদেষ্টা ডা. মোয়াজ্জেম হুসাইন, কে২ জাপানের এক্সিকিউটিভ ডিরেক্টর ইউমা মিতানি ও কে২ লজিস্টিকের সিওও ইয়োশিহিদে ইউদো। প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি শিল্প ও বিনিয়োগ বিষয়ক উপদেষ্টা সালমান এফ. রহমান এমপি অনুষ্ঠানে ভার্চ্যুয়ালি অংশগ্রহণ করেন।

অনুষ্ঠানে বক্তৃতা করেন সৈয়দ নাভেদ হোসেন, জাপানের রাষ্ট্রদূত নাউকি ইতো, এ. এস. এফ. রহমানসহ বেশক’জন অতিথি। পেশাগত পর্যায়ের পর্যবেক্ষণ ও মান নিয়ন্ত্রণে জাপানিজ প্রযুক্তি ও সক্ষমতার প্রয়োজনীয়তা উঠে আসে তাঁদের বক্তব্যে। 

দক্ষিণ এশিয়ার প্রথম ভার্টিক্যাল বেক্সিমকো হেলথ পিপিই পার্কের মেল্ট-ব্লোন, লেমিনেশন, আইসোলেশন ও সার্জিক্যাল গাউন, সার্জিক্যাল মাস্ক, এন৯৫ ক্যাপ টাইপ ও ফোল্ডেবল টাইপ মাস্ক, কেএন৯৫ মাস্ক, এফএফপি১, এফএফপি২ মাস্ক, শ্যু কভার, হেড কভার ও ইটিও জীবাণুনাশক সুবিধাসহ বিভিন্ন ধরনের পিপিই ফেব্রিক্স তৈরির প্রক্রিয়া পরিদর্শন করেন জাপানের রাষ্ট্রদূত। সব পণ্য সম্পূর্ণ পরিস্কার, নিরাপদ ও জীবাণুমুক্ত পরিবেশে সেলাই ও প্রক্রিয়াজাত করা দেখে প্রশংসা করেন তিনি।

অতিথিরা ইন্টারটেক ল্যাবও পরিদর্শন করেন। বেক্সিমকো ও ইন্টারটেক সম্মিলিতভাবে আন্তর্জাতিক মানের এই পিপিই ল্যাব গড়ে তুলেছে; যেখানে পিপিই’র যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য ও ইউরোপিয়ান স্ট্যান্ডার্ড ও মান পরীক্ষা করা হয়। 
পিপিই পার্কে চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠান শেষে বেক্সিমকো ইন্ডাস্ট্রিয়াল পার্ক পরিদর্শনে যান জাপানের রাষ্ট্রদূত। বেক্সিমকো’র স্বয়ংসম্পূর্ণ আধুনিক ভার্টিক্যাল টেক্সটাইল, গার্মেন্টস ও পৃথিবীর সর্ববৃহৎ টেকসই ওয়াশিং প্ল্যান্ট দেখে তিনি ভূয়সী প্রশংসা করেন। এছাড়া তিনি বেক্সিমকো ইন্ডাস্ট্রিয়াল পার্কে জাইকা’র অর্থায়নে জাপান থেকে আনা অত্যাধুনিক সুদাকোমা লুমস (তাঁত), সাইজিং মেশিন ও র‌্যাপিং মেশিন উদ্বোধন করেন।

অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি শিল্প ও বিনিয়োগ বিষয়ক উপদেষ্টা  সালমান এফ. রহমান এমপি বলেন, জাপানের সংগে আমাদের সম্পর্ক দীর্ঘদিনের, বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন ক্ষেত্রে আমরা একে অন্যের সহযোগী হয়ে কাজ করেছি। আজ আমাদের মধ্যে যে চুক্তি হচ্ছে, এটি জাপান ও বাংলাদেশের মধ্যে বেসরকারি খাতের একটি স্মরণীয় দিন। আশা করি, এই চুক্তির মাধ্যমে উভয় দেশ সমৃদ্ধ হবে।

তিনি বলেন, করোনা মহামারীর মধ্যে যখন পিপিই সংকট দেখা দিয়েছিলো, তখন বেক্সিমকোই সর্বপ্রথম এগিয়ে আসে।  সংকট মুহূর্তে আমাদের কর্মীরা ঈদের দিনও কাজ করে সঠিক সময়ে পিপিই উৎপাদন সম্পন্ন করেছেন।

তিনি বলেন, এই চুক্তির মাধ্যমে দু’দেশের মধ্যে যেমন সেতুবন্ধন তৈরি হবে, তেমনি তাদের লজিস্টিক পরামর্শে আমাদের পিপিই’র গুণগতমান আরও বৃদ্ধি পাবে।

বাংলাদেশে নিযুক্ত জাপানের রাষ্ট্রদূত নাউকি ইতো বলেন, আমি বেক্সিমকো ফার্মাসিটিক্যালকে অভিনন্দন জানাই, করোনা মহামারী মোকাবিলায় সাফল্যের জন্য। কে২ লজিস্টিক পিপিই’র গুণগুত মান ও উৎপাদন পরামর্শদাতা হিসেবে বেক্সিমকো হেলথের সংগে চুক্তিবদ্ধ হয়েছে। ফলে আমরা বলতে পারি, জাপান ও বাংলাদেশের মধ্যে বেসরকারি খাতে একটি নতুন যাত্রার সূচনা হলো। আমি সংশ্লিষ্টদের অভিনন্দন জানাই।

বিভি/কেএস/এএন

মন্তব্য করুন: