• NEWS PORTAL

  • বৃহস্পতিবার, ০২ ফেব্রুয়ারি ২০২৩

ভালো আছেন দেশের প্রথম মরণোত্তর দানের কিডনি প্রতিস্থাপন করা দুই রোগী

প্রকাশিত: ১৪:০৯, ২৩ জানুয়ারি ২০২৩

আপডেট: ১৪:০৯, ২৩ জানুয়ারি ২০২৩

ফন্ট সাইজ
ভালো আছেন দেশের প্রথম মরণোত্তর দানের কিডনি প্রতিস্থাপন করা দুই রোগী

ভালো আছেন দেশের প্রথম মরণোত্তর দানের কিডনি প্রতিস্থাপন করা দুই রোগী। চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, মৃত্যুর আগে ২০ বছর বয়সী তরুণী সারাহ ইসলামের দান করা কিডনিতে ইউরিন উৎপাদন শুরু হয়েছে কিডনি রোগী শামিমার শরীরে। এখন আইসিইতে থাকলেও শিগগিরই শামিমা পুরোপুরি স্বাভাবিক জীবনে ফিরবেন বলে আশা তার স্বজনদের। 

দেশে প্রথমবারের মতো মৃত ব্যক্তির দান করা কিডনি অন্য ব্যক্তির দেহে স্থাপন করা হয় গত ১৮ জানুয়ারি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে। 

ঢাকার বাসিন্দা সারাহ ইসলাম নামের এক তরুণী মস্তিস্কে টিউমারসহ নানা শারীরিক জটিলতায় ভুগছিলেন। মৃত্যুর আগে তার শরীরের সবকিছুই দান করে যান সারাহ ইসলাম। সারাহর দু'টি কিডনির একটি প্রতিস্থাপন হয় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব বিশ্ববিদ্যালয়ে অন্যটি মিরপুরের কিডনি ফাউন্ডেশনে। একই প্রক্রিয়ায় তার দান করা দু'টি কর্নিয়াও প্রতিস্থাপন করা হয়েছে। 

অস্ত্রপচারের নেতৃত্ব দেয়া বিএসএমএমইউ এর রেনাল ট্রান্সপ্লান্ট বিভাগের প্রধান অধ্যাপক হাবিবুর রহমান বলেন, কুসংস্কারের অচলায়তন ভেঙ্গে সারাহ যে দৃষ্টান্ত স্থাপন করে গেছেন, তা বাংলাদেশের চিকিৎসা ব্যবস্থায় স্মরণীয় হয়ে থাকবে। জানান, কিডনি প্রতিস্থাপন করা রোগীর বর্তমান শারীরিক অবস্থার কথাও।

শামীমার ভাই শাহজাদা আহমেদও জানান, তার বোনের অবস্থা আগের চেয়ে ভালো। পুরো পরিবারের পক্ষ থেকে সারাহ'র প্রতি কৃতজ্ঞতাও প্রকাশ করেন তিনি।

নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্র- আইসিইউতে অনেক রোগীই থাকেন যাদের ব্রেইন ডেথ হিসেবে বিবেচনা করা হয়। সাধারণত তাদের আর বাঁচার কোনো আশা থাকে না। তাদের হৃৎপিণ্ড ও ফুসফুস কৃত্রিমভাবে কিছু দিন চালু রাখা সম্ভব। এমন মানুষ কিডনি, হৃদপিণ্ড, ফুসফুস, লিভার, অগ্নাশয় ও খাদ্যনালীর মতো অঙ্গ দান করলে অন্যের দেহে প্রতিস্থাপন করা সম্ভব। তবে হৃৎপিণ্ড ও ফুসফুস থেমে গেলে শুধুমাত্র কর্নিয়া, অস্থি, অস্থিমজ্জা ও চামড়া প্রতিস্থাপন সম্ভব বলে জানালেন চিকিৎসকরা। 

বিভি/রিসি

মন্তব্য করুন: