• NEWS PORTAL

  • বৃহস্পতিবার, ০৮ ডিসেম্বর ২০২২

টুইটার বন্ধ হলে বিপদে পড়বেন সাংবাদিকরা!

প্রকাশিত: ১৮:৩৬, ২৪ নভেম্বর ২০২২

ফন্ট সাইজ
টুইটার বন্ধ হলে বিপদে পড়বেন সাংবাদিকরা!

জনপ্রিয় সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম টুইটার বন্ধ হলে সাংবাদিকরা হারাবেন অনেক কিছুই। কেননা গুরুত্বপূর্ণ অনেক সংবাদের অন্যতম উৎস টুইটার। এতে অনেক বিকৃত বা ভুয়া তথ্য থাকলেও গুরুত্বপূর্ণ অনেক ব্যক্তির সঙ্গে সংযুক্ত থাকায় নিয়মিত আপডেট পাওয়া যায় এতে। 

বিলিয়নিয়ার ইলন মাস্ক গত মাসে টুইটারের দায়িত্ব নেওয়ার পর থেকে নিচ্ছেন একের পর এক বিতর্কীত সিদ্ধান্ত। এসেই বিপুল সংখ্যক কর্মী বরখাস্ত করা শুরু করেন তিনি। এরপর নানা কারণে আলোচনায় উঠে আসে টুইটার। অনেকে টুইটার বন্ধ হওয়া নিয়ে শঙ্কিত হয়ে পড়েন। বিশেষ করে সাংবাদিকরা, যারা সরাসরি এর ওপর নির্ভরশীল।

এরপরও অনেক সাংবাদিক আশা করছেন টুইটার বন্ধ হবে না। বন্ধ হলে বেকায়দায় পড়বেন বেশিরভাগ সাংবাদিক। মূলত অফুরন্ত উৎস এবং তাৎক্ষণিক আপডেটের জন্য সাংবাদিকরা টুইটার ব্যবহার করে থাকেন। রাজনৈতিক ও বিনোদনের অনেক গুরুত্বপূর্ণ তথ্য তাৎক্ষণিভাবে পাওয়া যায় এতে।

রয়টার্স ইনস্টিটিউট ফর দ্য স্টাডি অব জার্নালিজমের নিক নিউম্যান বলেন, বেশিরভাগ সাংবাদিক টুইটার ছাড়তে পারবেন না। এটি আসলে তাদের কাজের একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ।

নিউম্যান ২০০৮-২০০৯ সালের দিকে বিবিসিতে কাজ করতেন, যখন টুইটার নতুন উদ্যোমে কাজ শুরু করে। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, মানুষের সঙ্গে যোগাযোগ করার একটি নতুন উপায় হিসেবে সামনে আসে টুইটার। ফলে অনেকেই এই সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমকে বেছে নেয় যোগাযোগের জন্য। অনেক রাজনৈতিক ব্যক্তি ও সেলিব্রেটি ক্রমেই যুক্ত হয় এই প্ল্যাটফর্মটির সঙ্গে।

ক্রমেই সংবাদমাধ্যমের জন্য গুরুত্বপূর্ণ তথ্যের উৎস হয়ে উঠে টুইটার। টুইটার ব্যবহার করে রাজনৈতিক ব্যক্তি ও সেলিব্রেটিরা তাদের অবস্থান ও মতামত দেওয়া শুরু করে। অন্যান্য সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমের সঙ্গে পাল্লা দিতে তারা সন্ত্রাসী হামলা, প্রাকৃতিক দুর্যোগ ও চলমান কোনো ঘটনার তাৎক্ষণিক তথ্য দিতে শুরু করে। ফলে শিগগিরই নিউজরুমের সংবাদের নির্ভরযোগ্য উৎস হয়ে উঠে টুইটার।

তবে সাংবাদিকরা বুঝতে পেরেছিলেন তাদের সর্বদা নিউজ ব্রেক করা উচিত না এবং তাদের ভূমিকা ভিন্ন হতে চলেছে। সংবাদটিকে প্রাসঙ্গিককরণ এবং যাচাই করার বিষয়ে তারা আরও বেশি সচেষ্ট হয়ে উঠেন বলে মন্তব্য করেন নিউম্যান।

সংবাদের গুরুত্বপূর্ণ উৎস হওয়া সত্ত্বেও এর অনেক প্রতিবন্ধকতা রয়েছে। অনেক সময় অনেক বিকৃত ও ভুয়া তথ্য এতে ছড়িয়ে পড়ে। সাংবাদিকরা অনেক সময় তথ্য যাচাই না করে তা প্রকাশ করে দেন ফলে অনেক সময় বিভ্রান্তির সৃষ্টি হয়।

কলম্বিয়া জার্নালিজম রিভিউ-এর ডিজিটাল মিডিয়া বিশেষজ্ঞ ম্যাথিউ ইনগ্রাম বলেন, শুধু টুইটারে মনোযোগ দেওয়া সাংবাদিকসহ অনেক লোক যেভাবে বিশ্বকে দেখেন তা বিকৃত করার প্রবণতা রাখে। কেননা, দ্রুত সংবাদ প্রকাশের জন্য অনেক সাংবাদিক টুইটার থেকে সরাসরি সংবাদ দিয়ে দেন। এতে অনেক সময় বিকৃত তথ্য ছড়িয়ে পড়ে। তবে তিনি আশা প্রকাশ করে বলেন, বর্তমান সাংবাদিকরা বিকৃতি মোকাবিলা করার জন্য যথেষ্ট বুদ্ধিমান হয়ে উঠেছে। এরপরও সাংবাদিকরা ‘বিভ্রান্তি এবং হয়রানির একটি বিশাল জোয়ার’ এর শিকার হয়েছেন।

২০১৯ সালে মার্কিন দৈনিক নিউ ইয়র্ক টাইমসের কলামনিস্ট ফরহাদ মানজো এ নিয়ে অনেক কথা বলেছেন। তিনি লিখেছেন, আমেরিকান সাংবাদিকতাকে ধ্বংস করে দিচ্ছে ক্ষুদেব্লগ টুইটার। সাংবাদিকতাকে উপজাতীয় গীতিনাটকের আবেগের জোয়ারের জায়গায় টেনে নিয়ে গেছে। যা হাঙ্গামা ও রোবট-চালিত চিন্তাভাবনার অনুকূলে চলে গেছে। এমনকি সবচেয়ে সরব কণ্ঠগুলোকে পুরস্কৃত করে উদার ও অ-অভিজাত জনসংখ্যার অধিকাংশের কাছে পৌঁছে গেছে এই প্ল্যাটফর্ম।

ইলন মাস্কের নানামুখী সিদ্ধান্তের কারণে অনেকেই এর টিকে থাকা নিয়ে সংশয়ে রয়েছেন। তবে অনেকেই আশা প্রকাশ করছেন এটি বন্ধ হবে না।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বাটলার ইউনিভার্সিটির সমাজবিজ্ঞানী স্টিফেন বার্নার্ড বলেছেন, ‘আমি মনে করি না যে টুইটার শিগগিরই যে কোনো সময় বন্ধ হয়ে যাবে।’ তবে সাংবাদিকদের এর নিখোঁজ হওয়ার আশঙ্কার উপযুক্ত কারণ রয়েছে বলে জানান তিনি।

সূত্র: টাইমস অব ইন্ডিয়া

বিভি/টিটি

মন্তব্য করুন: