• NEWS PORTAL

  • বৃহস্পতিবার, ০২ ফেব্রুয়ারি ২০২৩

চাকরিতে বয়স বাড়ানোর দাবিতে মাঠে নামছে নতুন সংগঠন, কর্মসূচি ঘোষণা

প্রকাশিত: ২১:১৪, ৫ জানুয়ারি ২০২৩

ফন্ট সাইজ
চাকরিতে বয়স বাড়ানোর দাবিতে মাঠে নামছে নতুন সংগঠন, কর্মসূচি ঘোষণা

সরকারি-বেসরকারি সব ধরনের চাকরিতে আবেদনের বয়সসীমা ৩৫ বছর করার দাবিতে আন্দোলন করতে মাঠে নামছেন একদল চাকরিপ্রত্যাশী। এরই মধ্যে তারা নতুন আহ্বায়ক কমিটি গঠন করেছে। দলে রয়েছেন দেশের বিভিন্ন কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পাস করা শিক্ষার্থীরা।

নতুন এই কমিটির নাম দেওয়া হয়েছে ‘চাকুরীতে আবেদনের বয়সসীমা ৩৫ প্রত্যাশী শিক্ষার্থী সমন্বয় পরিষদ’। ইতিমধ্যে কর্মসূচির ঘোষণাও দিয়েছে সংগঠনটি। আগামী ২৮ জানুয়ারি ঢাকায় শিক্ষার্থী সমাবেশসহ সব জেলা, বিভাগী শহর ও কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়ে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করবে তারা।

বৃহস্পতিবার (৫ জানুয়ারি) বিকালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাংবাদিক সমিতিতে সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময় ও সংবাদ সম্মেলন করে এ ঘোষণা দেন সংগঠনটির আহ্বায়ক মো. শরিফুল ইসলাম শুভ।

শরিফুল ইসলাম শুভ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় আইন অনুষদ ছাত্রলীগের সভাপতি ছিলেন। নতুন এই কমিটি তাদের সঙ্গে সংহতি জানিয়ে একই দাবিতে আন্দোলন করে যাবেন বলে জানান মো. শরিফুল ইসলাম শুভ।

আহ্বায়ক কমিটি গঠনের কথা জানিয়ে শুভ বলেন, শিগগিরই বাকি জেলাগুলোতে কমিটি গঠন করা হবে। আগামী ২৮ জানুয়ারি সারাদেশে কর্মসূচি পালন করবেন তারা, স্মারকলিপিও দেবেন সরকারকে।

বর্তমানে সরকারি চাকরিতে প্রবেশের বয়সসীমা ৩০ বছর, মুক্তিযোদ্ধার সন্তানদের ক্ষেত্রে ৩২ বছর। এই সীমা বাড়ানোর দাবি বেশ কয়েক বছর ধরেই রয়েছে, যদিও সরকার তাতে সাড়া দেয়নি।

মহামারীর মধ্যে নিয়োগ বন্ধ থাকায় যারা ক্ষতির মুখে পড়েছে, তাদের জন্য দুই দফা সুযোগ দেওয়া হয়েছে। ২০২০ সালের ২৫ মার্চ যাদের চাকরির বয়স শেষ হয়ে গিয়েছিল, সেবছর সেপ্টেম্বরেও তাদের সরকারি চাকরিতে আবেদনের সুযোগ দেওয়া হয়েছিল।

কিন্তু মহামারী প্রলম্বিত হতে থাকায় পরের বছর আরেক দফা সুযোগ দেওয়া হয়। ২০২০ সালের ২৫ মার্চ যাদের বয়স ৩০ বছর হয়েছে, তারা ২০২১ সালের ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত প্রকাশিতব্য সব সরকারি চাকরির বিজ্ঞপ্তিতে আবেদন করার সুযোগ পান।

সংবাদ সম্মেলন থেকে চাকরিতে আবেদন ফি সর্বোচ্চ ১০০ টাকা এবং জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মজিবুর রহমানের স্মৃতিবিজড়িত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় আইন অনুষদে বঙ্গবন্ধুর নামে বঙ্গবন্ধু ল’ কমপ্লেক্স, বঙ্গবন্ধু চেয়ার এবং একটি ম্যুরাল স্থাপনের দাবি জানানো হয়।

পরিষদের সদস্য সচিব মোহাম্মদ রাসেলের সঞ্চালনায় সংবাদ সম্মেলনে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখার আহ্বায়ক সানাউল হক সনি ও খোকন মিয়া বক্তব্য দেন।

বিভি/এজেড

মন্তব্য করুন: