• NEWS PORTAL

  • মঙ্গলবার, ২৮ মার্চ ২০২৩

নূর হোসেন ফাঁসির অপেক্ষায়, দখলবাজিতে ভাতিজা বাদল (ভিডিও)

শুভ খান

প্রকাশিত: ১৬:০৮, ২৫ জুলাই ২০২২

আপডেট: ১৮:৫৭, ২৬ জুলাই ২০২২

ফন্ট সাইজ
নূর হোসেন ফাঁসির অপেক্ষায়, দখলবাজিতে ভাতিজা বাদল (ভিডিও)

সম্প্রতি বাংলাভিশনের কাছে খবর আসে নারায়নঞ্জে ৩৪টি পরিবারকে তাদের বসত ভিটা থেকে উচ্ছেদের চেষ্টা চালাচ্ছে একটি ভূমিদস্যু চক্র। ঘটনাস্থলে গিয়ে দেখাগেলো ইতিমধ্যেই চারটি পরিবারের বাড়ি-ঘর ভেঙ্গে ফেলেছে স্থানীয় সাজু ডেভলাপার। ভূক্তভোগিদের অভিযোগ নারায়গঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের ৩নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর শাহ জালাল বাদল আর তার সহযোগি শাজাহান সাজু তাদের ৮০ বছরের পুরানো বসতবাড়ি থেকে উচ্ছেদের চেষ্টা চালাচ্ছেন।

জানা যায় তৎকালিন জমিদার মথুরা মোহন সাহা ১৯৩৮ সালে ২৪০ শতাংশ ভূমি তার কর্মচারি ও ঘনিষ্ঠ প্রজাদের দান করেন। কেবল মুখে মুখে নয় সে সময় জমিদার আইন অনুযায়ী পাট্টা বা জোত পত্তন নামা দলিলও তাদের প্রদান করেন। সে অনুযায়ী ১৬০ শতাংশ জমিতে বাড়ি ঘর তৈরি করে প্রায় ৮০ বছর পুরুষানুক্রমে ভোগ দখলে রয়েছে ৩৪টি পরিবার।

তবে মূল্যবান এই সম্পত্তির দিকে শুরু থেকে চোখ ছিলো স্থানীয় ভূমিদস্যুদের। ইমরান শেখ নামে এক ব্যক্তি ৫২৫/২০১৫ ফৌজদারী কার্যবিধি ১৪৫ দ্বারা অনুযায়ী ভুক্তভোগীদের বিরুদ্ধে মামলা করেন। পরর্বতীতে ২০১৬ সালে এসি ল্যান্ড সরজমিনে তদন্ত করে ভুক্তভোগীদের পক্ষে প্রতিবেদন দাখিল করলে আদালত মামলাটি খারিজ করে দেন। 

সবশেষ এই সম্পত্তি গ্রাস করতে তৎপর সাজু ডেভলাপার। জমির মালিকানা দাবি করে বহুতল ভবন তৈরির চেস্টা চালাচ্ছে তারা। সেখানকার চারটি পরিবারকে ইতিমধ্যেই উচ্ছেদ করেছে তারা। বাকি ৩০টি পরিবারও প্রতিনিয়ত হুমকির মুখে রয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন তারা।

বসত ভিটা রক্ষায় সম্ভাব্য সব জায়গায় ধরনা দিয়েছেন ভক্তভোগিরা। দুর্নীতি দমন কমিশন, জেলা প্রশাসক নারায়ণগঞ্জ, পুলিশ সুপার নারায়ণগঞ্জের কাছে তফসিল ভুক্ত ভূমির জবর দখল ও ক্ষতি সাধন হইতে প্রতিকারের নিমিত্তে আবেদন করেন তারা। 

অভিযুক্ত সাজু ডেভেলপার কোম্পানির কাগজ পত্র যাচাই বাছাইর জন্য ভিকটিমরা আবেদন করেছেন নারয়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবর। কিন্তু সম্প্রতি তিনি বদলি হয়ে যাওয়ায় অফিসে গিয়ে তাকে পাওয়া যায়নি। মেয়র সেলিনা হায়াত আইভি অসুস্থ্য থাকায় নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনে গিয়ে তাঁরও সাক্ষাৎ পায়নি বাংলাভিশন। তবে দপ্তরের অন্যান্য কর্মকর্তারা আবেদন জমা হওয়ার বিষয়টি স্বীকার করে শিগগিরই ব্যবস্থা নেয়ার আশ্বাস দেন।
 
বিভিন্ন সরকারি দপ্তরে লিখিত অভিযোগে সাজু ডেভলাপারের বিরুদ্ধে ৪টি বসত-বাড়ি ভাংচুর ও মালামাল নষ্টের কথা জানিয়েছে পরিবারগুলো। এ বিষয়ে কোম্পানির মালিক শাজাহান সাজুর সঙ্গে যোগাযোগ করলে তিনি আমাদের সাক্ষাৎ দেননি। মুঠোফোনে জানান এই বিরোধ সিটি কর্পোরেশনের মাধ্যমে ফয়সালা হবে।

পরে ডেভলাপার সাজুর পৃষ্ঠপোষক হিসেবে পরিচিত ৩নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর শাজালাল বাদলের অফিসে গিয়ে তাকেও পাওয়া জায়নি। মুঠোফোনে শাজাহান সাজুর অনুরুপ বক্তব্য দিয়েছেন সাত খুনের হোতা নূর হোসেনের ভাতিজা।

সাত খুনের হোতা নূর হোসেনের ভাতিজা শাহ জালাল বাদল

নারায়গঞ্জের সাত খুনের প্রধান আসামি তৎকালিন কাউন্সিলর নূর হোসেন জেলে প্রহর গুণছেন ফাঁসির। তবে তার দখল চাঁদাবাজিসহ প্রায় সকল অপকর্মের সহযোগী ভাতিজা কাউন্সিলর শাহ জালাল বাদল চাচার রেখে যাওয়া অপরাধ সম্রাজ্যের আরও বিস্তার ঘটিয়ে চলছেন এমনই অভিযোগ করেছেন ভূক্তভোগীরা। 

২০১৪ সালের ২৭ এপ্রিল ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ লিংক রোড থেকে প্যানেল মেয়র নজরুল ইসলাম, আইনজীবী চন্দন সরকারসহ সাতজন অপহৃত হন। ওই বছরের ৩০ ও ৩১ এপ্রিল শীতলক্ষ্যা নদী থেকে তাঁদের মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। এ ঘটনায় করা মামলায় জেলা ও দায়রা জজ আদালত নূর হোসেন, র্যা ব ১১–এর সাবেক তিন কর্মকর্তাসহ ২৬ জনকে মৃত্যুদণ্ড দেন। পরে উচ্চ আদালত ১৫ জনের মৃত্যুদণ্ড বহাল রাখেন এবং অন্যদের বিভিন্ন মেয়াদে সাজা দেন।

বিভি/রিসি

মন্তব্য করুন: