• NEWS PORTAL

  • বৃহস্পতিবার, ১৩ জুন ২০২৪

Inhouse Drama Promotion
Inhouse Drama Promotion

অবসর নিলেন অ্যান্ডারসন, রক্ষা পেলো শচীনের রেকর্ড

প্রকাশিত: ১৯:৪০, ১১ মে ২০২৪

ফন্ট সাইজ
অবসর নিলেন অ্যান্ডারসন, রক্ষা পেলো শচীনের রেকর্ড

সেই ২০০৩ সালে দেশের জার্সিতে হাতে তুলে নিয়েছিলেন লাল বল, দীর্ঘ ২১ বছরে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করেছেন সর্বকালের সেরা পেস বোলার হিসেবে। এবার থামছেন জেমস অ্যান্ডারসন। জিম্বাবেুয়ের বিরুদ্ধে যে লর্ডসে অভিষেক টেস্ট খেলেছিলেন জিমি, সেই ক্রিকেটের মক্কায় বিদায়ী টেস্ট খেলতে চলেছেন ৭০০ উইকেটের মালিক।

শনিবার জিমি লম্বা বিবৃতি দিয়ে অবসরের সিদ্ধান্ত ঘোষণা করে দিয়েছেন। জুলাইয়ে ওয়েস্ট ইন্ডিজ তিন ম্যাচের টেস্ট সিরিজ খেলতে আসছে ইংল্য়ান্ডে। সিরিজের প্রথম টেস্ট লর্ডসে। যা শুরু ১০ জুলাই থেকে। এই টেস্টই হবে জিমির ফেয়ারওয়েল টেস্ট। 

এদিন বিশ্ববন্দিত ব্রিটিশ পেসার লেখেন, 'সবাইকে কিছু বলতে চাই। আসন্ন গ্রীষ্মে লর্ডসে প্রথম টেস্টই হবে আমার শেষ টেস্ট। দেশের হয়ে ২০ বছর প্রতিনিধিত্ব করার অনুভূতিই অসাধারণ। ছোট থেকে যে খেলাটা ভালোবেসেছি, সেই খেলাটাই খেলতে পেরেছি। ইংল্য়ান্ডের হয়ে খেলা অবশ্য়ই মিস করব। তবে জানি কখন সরে আসার সেরা সময়। ড্যানিয়েলা, লোলা, রুবি এবং আমার বাবা-মায়ের ভালবাসা এবং সমর্থন ছাড়া আমি এটা করতে পারতাম না। তাদের বিশাল ধন্যবাদ। এছাড়াও, খেলোয়াড় এবং কোচদের ধন্যবাদ যারা আমার ক্রিকেটকেই বিশ্বের সেরা কাজে রূপান্তর করেছেন।সামনের নতুন চ্যালেঞ্জের জন্য উত্তেজিত। এর সঙ্গেই আরও বেশি করে গল্ফ খেলার ইচ্ছাপূরণ হবে৷ বছরের পর বছর ধরে যারা আমাকে সমর্থন করেছেন তাদের প্রত্যেককেও ধন্যবাদ।' অ্য়ান্ডারসনের অবসরের সঙ্গেই ইংল্য়ান্ডের অসাধারণ পেস ইতিহাসের এক অধ্য়ায় শেষ হবে। স্টুয়ার্ট ব্রডের পর এবার অ্যান্ডারসনও হচ্ছেন অতীত।

টেস্ট ছাড়াও জিমি দেশের জার্সিতে একদিনের আন্তর্জাতিক ক্রিকেট (১৯৪ ম্যাচে ২৬৯টি উইকেট) ও টি-২০ (১৯ ম্যাচে ১৮টি উইকেট) ম্যাচ খেলেছেন। টেস্ট ক্রিকেটে সর্বাধিক উইকেট শিকারিদের তালিকায় জিমি তিনে। একে রয়েছে মুত্তিয়া মুরালিরন (৮০০), দুইয়ে শেন ওয়ার্ন (৭০৮) ও তিনে জিমি (৭০০)। বিশ্বে সর্বাধিক টেস্ট খেলা ক্রিকেটারের নাম শচীন টেন্ডুলকার। তিনি ২০০টি টেস্ট খেলেছেন। দুয়ে আছেন জিমি। ১৮৭ টেস্ট খেলেছেন তিনি। জিমির কাছে সুযোগ ছিল শচীনকে টপকে যাওয়ার। তবে তা আর হচ্ছে না। অক্ষতই থাকছে শচীনের রেকর্ড!

বিভি/এজেড

মন্তব্য করুন: