• NEWS PORTAL

  • বুধবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২২

শিরোপাজয়ী পাহাড়ী কন্যাদের নেপথ্য কারিগররা আড়ালে

এইচ এম প্রফুল্ল,খাগড়াছড়ি প্রতিনিধি

প্রকাশিত: ২২:১২, ২২ সেপ্টেম্বর ২০২২

আপডেট: ২২:৪৪, ২২ সেপ্টেম্বর ২০২২

ফন্ট সাইজ
শিরোপাজয়ী পাহাড়ী কন্যাদের নেপথ্য কারিগররা আড়ালে

আনাই, আনু, ঋতুপর্ণা, মনিকা ও রুপনাদের তারকা খেলোয়াড় হয়ে উঠার নেপথ্য কারিগর ছিলেন স্কুল শিক্ষক ফুটবলপ্রেমী বীরসেন চাকমা। তিনি এ পাঁচ নারী ফুটবলারকে গড়ে তোলার জন্য অক্লান্ত পরিশ্রম করেছেন। নিজের বাসায় আশ্রয় দিয়েছেন। অর্থের জন্য অনেকের কাছে হাতও পেতেছেন। অনেক সময় নিজের জিপিএফ থেকে হাজার হাজার টাকা উত্তোলন করে খরচ করেছেন।

No description available.

এছাড়াও এই পাঁচ নারী ফুটবলারের কোচ ছিলেন, সুইহ্লামং মার্মা। তিনি ছিলেন বাংলাদেশ আনসারের কোচ। তিনি মঘাছড়ি বিদ্যালয়ের খুদে খেলোয়াড়দের বিনা পারিশ্রমিকে ফুটবলের প্রশিক্ষণ দিয়েছেন। আর তাদের সহযোগিতা করেছেন, বর্তমানে রাঙামাটির জেলার জুড়াছড়ি উপজেলায় কর্মরত উপজেলা শিক্ষা অফিসার কৌশিক চাকমা। 

No description available.

আজ আনাই, আনু, ঋতুপর্ণা, মনিকা ও রুপনারা দেশের ফুটবল তারকা। হিমালয় জয়ের পর  দেশ আনন্দে ভাসছে। কিন্তু বাঘিনীদের তারকা খেলোয়াড় হয়ে উঠার নেপথ্য কারিগর বীরসেন চাকমা, কৌশিক চাকমা ও সুইহ্লামং মারমাসহ অনেকের অবদান আড়ালে রয়ে গেছে। এই কারিগরদের নামও করো নজড়ে আসছে না। 

অনুসন্ধানে জানা গেছে, খাগড়াছড়ি জেলা সদরের সাতভাইয়াপাড়া পাহাড়ি গ্রামের দুই যমজ বোন আনাই মগিনী, আনুচিং মগিনী ও জেলার লক্ষ্মীছড়ির বাসিন্দা মনিকা চাকমার পরিবার ছিল হত-দরিদ্র। জন্মের পর ছোট বেলা থেকে তাদের কেটেছে অভাব আর অনটনে। 

খাগড়াছড়ি জেলা সদরের সাতভাইয়া পাড়া পাড়ার যমজ বোন আনাই মগিনী ও অনুচিং মগিনী। এরা ছিলেন পাঁচ ভাই ও দুই বোন।

No description available.

জানা গেছে, পরিবারের অভাব অনটন থাকায় ঠিক মতো তাদের দেখভাল করতে না পারার ভয়ে জন্মের পরপরই অনুচিং মগিনী ও আনাই মগিনীর হত দরিদ্র পিতা রিপ্রু মারমা সন্তানদের দত্তক দেয়ার পরিকল্পনা করেছিলেন। 

অপরদিকে খাগড়াছড়ির লক্ষ্মীছড়ি উপজেলার দূর্গম সুমন্তপাড়ার গ্রামের মেয়ে মনিকা চাকমা। আনাই-আনুচিং ও মনিকাদের খেলাধূলা তো দূরের কথা মৌলিক অধিকারের অনেক সুবিধাই ছিল না এই দুই গ্রামে। তবে নিজেদের  প্রবল ইচ্ছে শক্তি ও ক্রীড়া নিপুণতা ছিল তাদের। এরা ছোটবেলা থেকে জাম্বুরা দিয়ে ফুটবল খেলতো। কিন্তু তাদের সহযোগিতায়  কেউ এগিয়ে আসেনি। বিষয়টি নজড়ে আসে রাঙামাটির মঘাছড়ি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক বীরসেন চাকমার। তিনি আনাই, আনুচিং ও মনিকা চাকমাকে পরিবারসহ মঘাছড়ি নিয়ে যান। সেখানে তাদের থাকার বাড়ী করে দেন। আনাই, আনুচিং ও মনিকা তখন ৩য় শ্রেনীতে পড়তেন। বীরসেন চাকমা তাদের নিজ স্কলে ভর্তি করে দেন। 

ঋতুপর্ণা ও রুপনাও ছিলেন একই স্কুলের শিক্ষার্থী। পিতৃহীন ঋতুপর্ণাকে নিজের বাসায় থাকার ব্যবস্থা করেন বীরসেন চাকমা। এভাবে তিনি তার বিদ্যালয়ে পুরো একটি ফুটবল টীম গড়ে তুলেন। বীরসেন চাকমা বর্তমানে কাউখালী উপজেলার উল্টা পাড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক।

সুইহ্লামং মার্মা বাংলাদেশ আনসারের কোচ ছিলেন। মঘাছড়ি বিদ্যালয়ের খুদে খেলোয়াড়দের বিনা পারিশ্রমে ফুটবলের প্রশিক্ষণ দিতেন। তার অনুশীলনের মাধ্যমে আনাই, আনুচি, মনিকা, ঋতুপর্ণা ও রুপনাদের ফুটবলার হওয়ার প্রাথমিক যাত্রা শুরু। মঘাছড়ি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় জাতীয় পর্যায়ে চ্যাম্পিয়ন টিমেরও কোচ ছিলেন সুইহ্লামং মার্মা। 

No description available.

কিন্তু সুইহ্লামং মার্মার এই টীমের কোচ হওয়াটা কঠিন ছিল। কারণ তিনি আনসারের চাকুরি করতেন। এছাড়া আনসারের ফুটবল কোচার হওয়ায় সফিপুর থেকে মঘাছড়ি এসে অনুশীলন করানো তার পক্ষে কঠিন কাজ ছিল।তারপরও তিনি নানা প্রতিকুলতা সত্বেও খুদে ফুটবলারদের প্রশিক্ষণ দিয়েছেন।

মঘাছড়ি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে তারা পিএসসি পাশ করার পর বীরসেন চাকমা আনাই, আনুচি, মনিকা, ঋতুপর্ণা ও রুপনাদের ঘাগড়া উচ্চ বিদ্যালয়ে ভর্তি করানোর ব্যবস্থা করেন, যাতে টীমটা ঠিক থাকে।

তৎকালীন কাউখালী উপজেলা সহকারী শিক্ষা অফিসার ও বর্তমানে জুড়াছড়ি উপজেলা শিক্ষা অফিসার কৌশিক চাকমা বলেন, স্কুল শিক্ষক বীরসেন চাকমা আনাই, আনু, ঋতুপর্ণা, মনিকা ও রুপনাদের আজকের এই পর্যায়ে নিতে অনেক কষ্ট করেছেন। নিজের বাসায় আশ্রয় দিয়েছেন। অর্থের জন্য অনেকের কাছে হাত পেতেছেন। অনেক সময় নিজের জিপিএফ থেকে হাজার হাজার টাকা উত্তোলন করে খরচ করেছেন। 

তিনি বলেন সকলের ঐকান্তিক চেষ্টায় বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিব প্রাথমিক বিদ্যালয় গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্নামেন্টে মঘাছড়ি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ২০১১ সালে জাতীয় পর্যায়ে চ্যাম্পিয়ন ও  ২০১৩ সালে জাতীয় পর্যায়ে রানার আপ হয়। অনূর্ধ্ব-১৫ উচ্চ বিদ্যালয় পর্যায়ে কাউখালীর ঘাগড়া উচ্চ বিদ্যালয়ের আনাই, আনুচিং, মনিকা, ঋতুপর্ণা ও রুপনারা ময়মনসিংসের কলসিন্দুর উচ্চ বিদ্যালয়ের মারিয়া মান্ডাও সানজিদাদের পরাজিত করে উচ্চ বিদ্যালয় পর্যায়ে জাতীয় চ্যাম্পিয়ন হন। এর পর জাতীয় দলে ডাক ও অন্তর্ভুক্তি। পরের গল্পতো সবারই জানা।

বিভি/এজেড

মন্তব্য করুন: