• NEWS PORTAL

  • রবিবার, ০৩ জুলাই ২০২২ | ১৯ আষাঢ় ১৪২৯

অ্যাপসেই মিলবে, অবসর ভাতা নিতে শিক্ষকদের আসা লাগবে না অফিসে

প্রকাশিত: ২১:৩২, ২২ মে ২০২২

ফন্ট সাইজ
অ্যাপসেই মিলবে, অবসর ভাতা নিতে শিক্ষকদের আসা লাগবে না অফিসে

সারাদেশের এমপিওভূক্ত শিক্ষক কর্মচারিরা কোন রকম ঝামেলা ছাড়াই  "অবসর" অ্যাপসের মাধ্যমেই অবসর ভাতার আবেদন করতে পারবেন বলে জানিয়েছেন  শিক্ষক-কর্মচারী অবসর সুবিধা বোর্ড সদস্য সচিব, অধ্যক্ষ শরীফ আহমেদ সাদী।

রবিবার (২২ মে)রাজধানীর লেক সার্কাস বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে শিক্ষকদের দুই দিনব্যাপী ইন হাউস ট্রেনিং অন লার্নিং ফর ইমপ্যাথি ট্রেনিং এর শেষ দিনে এই সব কথা বলেন। 

সারাদেশের এমপিওভূক্ত শিক্ষক কর্মচারিরা কোন রকম ঝামেলা ছাড়াই যেন ঘরে বসে এই অ্যাপসের মাধ্যমেই অবসরের আবেদনসহ এই অ্যাপস এর মাধ্যমে নিজের মুঠোফোনে জানা যাবে কত দিনের মধ্যে অবসর ভাতার টাকা  পাবেন এবং কোন অবস্থায় রয়েছে। 

এসময় তিনি বলেন, স্কুল, কলেজ,এবং মাদ্রাসার শিক্ষকরা অবসরে যাওয়ারপর নানান সমস্যায় পড়তে হয়। তাদের কাগজ পত্র জোগাড় করতেই তিন  থেকে চার বছর ক্ষেপণ হয়। বিভিন্ন সময় মধ্যেসত্ব ভোগিদের সহায়তা কাগজপত্র জমা দিলেও বছরের পর বছর টাকা পয়সা খরচ করে তাদের পেছনে ঘুরে হয়রানির শিকার হতো।

সে বিষয়টি মাথায় রেখে শিক্ষা মনণালয়ের অধীন অবসর সুবিধা বোর্ড সারাদেশের এমপিওভূক্ত শিক্ষক কর্মচারীদের অবসর ভাতা প্রদান সংক্রান্ত যাবতীয় বিষয় কাজের সুবিধার জন্য অ্যাপস চালু করছে।

এই অ্যাপস এর মাধ্যমে কারো কাছে না গিয়েই ঘরে বসেই একজন অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক। তার অবসরের টাকাটি গ্রহণ করতে পারবেন। শিক্ষক-কর্মচারী অবসর সুবিধা বোর্ডক তিনি পেপারলেস অফিস করার ঘোষণাও দেন। 

যদি এই সময় শিক্ষকরা দাবি করেন, ডিজিটালাইজেশনের এই যুগে তিন বছর লাগাটা অনেক বেশি সময়। সেটিকে কিভাবে কমানো যায় এবং এক থেকে দুই মাসের মধ্যে যেন শিক্ষকরা তাদের অবসরের টাকাটা পান সেই দাবি জানান তারা। 

অধ্যক্ষ শরীফ আহমেদ সাদী বলেন, একটা সময়  শিক্ষকরা অবসরে যাওয়ার পর  অবসরে টাকা পেতে ৫ থেকে ৭ বছরের বেশি সময় লাগতো। সেট এখন কমে ৩ বছর হয়েছে। ধীরে ধীরে সময় আরো কমিয়ে আনার চেষ্টা চলছে বলেও জানান তিনি । তবে পেছনের যে জট তৈরি হয়েছ সেটি কমে আসলেই টাকা আরো কম সময়ে দিতে পারবেন।

এই দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া এবং বিশ্বের বিরল নেতৃত্বের অধিকারী প্রধানমন্ত্রী শেখ  হাসিনার হাত ধরেই বাংলাদেশ ডিজিটালাইজেশন হয়েছে। তার নেতৃত্বেই  এগিয়ে যাচ্ছে দেশ।
  
দুই দিনের অনুষ্ঠান শেষে শিক্ষকদের হাতে সার্টিফিকেট তুলে দেয়া হয়। 

অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন, লেক সার্কাস উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোঃ মোস্তফা কামাল, বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান শিক্ষক ও কর্মচারী অবসর সুবিধা বোর্ড এর সদস্য অধ্যাপক মোহাম্মদ নাজিম উদ্দিন তালুকদার

বিভি/এজেড

মন্তব্য করুন: