• NEWS PORTAL

  • শনিবার, ২০ এপ্রিল ২০২৪

পঞ্চগড়ে বিদেশি আগ্রাসন বন্ধের দাবিতে প্রতীকী লাশের মিছিল

পঞ্চগড় প্রতিনিধি

প্রকাশিত: ১৯:২৪, ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০২৪

ফন্ট সাইজ
পঞ্চগড়ে বিদেশি আগ্রাসন বন্ধের দাবিতে প্রতীকী লাশের মিছিল

ভারত ও মিয়ানমার সীমান্তে বাংলাদেশি নাগরিক হত্যা বন্ধে দেশের সীমান্তবর্তী জেলাগুলোতে প্রতীকী লাশ নিয়ে মিছিল করছেন হানিফ বাংলাদেশি নামে এক ব্যক্তি। কর্মসূচির অংশ হিসেবে শনিবার (২৪ ফেব্রুয়ারি) বিকাল তিনটায় পঞ্চগড় শহরের চৌরঙ্গী মোড়ে পৌঁছান তিনি। পরে সেখানে প্রায় আধঘণ্টা অবস্থান নিয়ে সীমান্ত হত্যা ও দেশে বিদেশি আগ্রাসন বন্ধে প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। এরপরে তিনি সীমান্ত হত্যা ও বিদেশি অগ্রাসন বন্ধে পঞ্চগড় চৌরঙ্গী মোড় থেকে প্রতীকী লাশ নিয়ে একটি মিছিল বের করেন। মিছিলটি শহরের প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে শহরের বকুলতলা এলাকায় পঞ্চগড় প্রেসক্লাবে গিয়ে শেষ হয়।

এ সময় হানিফ বাংলাদেশির সঙ্গে আসা তিন যুবক প্রতীকী লাশ নিয়ে দাঁড়িয়ে থেকে সীমান্তে হত্যা বন্ধে প্রতিবাদ জানান। তারা হলেন, এনইউ আহমেদ, সৌরভ হোসেন বেলাল ও মোহাম্মদ আরিফ হোসেন।

হানিফ বাংলাদেশি বলেন, ‘বাংলাদেশের প্রতিবেশী দুটি দেশ আছে। একটি ভারত ও অন্যটি মায়ানমার। এই দেশ দুটি সব সময় বাংলাদেশের ওপর আগ্রাসন চালাচ্ছে। মিয়ানমার ১২ লাখ রোহিঙ্গাকে অত্যাচার করে বাংলাদেশে পাঠিয়েছে। এসব রোহিঙ্গা নিজেরা মানববেতর জীবনযাপন করছে, বাংলাদেশের নানা রকম সামাজিক সংকট সৃষ্টি করছে। গত ৫ ফেব্রুয়ারি দেশটির অভ্যন্তরে যুদ্ধের কারণে মর্টার শেল বাংলাদেশে এসে পড়ে দুই বাংলাদেশি নিহত হয়েছে। ওই দেশটির ৩৩০ জন বিজিপিসহ সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারী দেশে অনুপ্রবেশে করেছে। তাদের বাংলাদেশ সরকার সম্মানের সাথে ফেরত পাঠিয়েছে। কিন্তু দুই বাংলাদেশি নিহতের ঘটনার দায় কে নেবে? অবশ্যই মিয়ানমার সরকারকে এই হত্যার দায় নিতে হবে। তা না হলে বাংলাদেশ সরকারকে এর দায় নিতে হবে।

হানিফ বাংলাদেশী আরো বলেন, ভারত সব সময় সীমান্তে নিরিহ মানুষকে পাখির মত গুলি করে হত্যা করছে। গত ২২ জানুয়ারি যশোরের শার্শা উপজেলার বেনাপোল ধান্যখোলা সীমান্তে বাংলাদেশের একজন বিজিবি  সদস্যকে বিএসএফ গুলি করে হত্যা করেছে। গত ৪ মাসে বাংলাদেশ-ভারত সীমান্তে ২১ জন বাংলাদেশি বিএসএফ এর গুলিতে নিহত হয়েছেন। বিভিন্ন মানবাধিকার সংগঠনের হিসেবে ২০১০ সাল থেকে এ পর্যন্ত প্রায় ১ হাজার ২৭৬ জন বাংলাদেশিকে বিএসএফ হত্যা করেছে আর বাহিনীটির গুলিতে আহত হয়েছেন অন্তত ১ হাজার ১৮৩ জন।  

হানিফ বাংলাদেশি বলেন, বাংলাদেশের জনগণ সব সময় প্রতিবেশি ও বন্ধু দেশগুলোর সাথে ভালো সম্পর্ক রাখতে চায় কিন্তু প্রতিবেশি দেশ দুইটি বাংলাদেশের সাথে সব সময় বৈরি আচরণ করে। সীমান্তে বাংলাদেশিদের হত্যার পরে বলা হয় এরা গরু চোর চোরাকারবারি। হতে পারে এরা গরু চোর চোরাকারবারি। তহালে তাদের আইনের আওতায় এনে বিচার করা হোক। গুলি করে হত্যা করবে কেন?। ভারত যদি তাদের দেশের পাচারকারিদের দমন করে তাহলে বাংলাদেশের পাচারকারিরা এমনিতে বন্ধ হয়ে যাবে।  

হানিফ বাংলাদেশি আরো বলেন, স্বাধীনতার পর থেকে বাংলাদেশে রাষ্ট্র ক্ষমতায় যখন যে দলই এসেছে, সে দলই দীর্ঘ মেয়াদে ক্ষমতায় থাকার জন্য দেশের মানুষের আত্ম  মর্যাদা বিসর্জন দিয়ে বিদেশিদের দ্বারস্থ হয়েছেন। শাসকদের এই দুর্বল নতজানুর কারণে ভারত ও মিয়ানমার সব সময় বাংলাদেশের উপর আগ্রাসন চালিয়ে যাচ্ছে, বিদেশি অন্য দেশগুলো বাংলাদেশের অভ্যন্তরীণ বিষয়ের উপর খবরদারি করার সাহস পাচ্ছে। ৩০ লাখ শহিদের রক্তের বিনিময়ে অর্জিত স্বাধীন দেশের মানুষ কখনও কোনো দেশের আগ্রাসন দাদাগিরি মেনে নেয়নি আমাদের বিগত প্রজন্ম। নতুন প্রজন্মও কোনো দেশের আগ্রাসন মেনে নেবে না। বাংলাদেশের মানুষ আত্ম মর্যাদা নিয়ে বিশ্বের দরবারে মাথা উঁচ করে বাঁচতে চায়।    

হানিফ বাংলাদেশি এই কর্মসূচিতে আমারা দেশবাসীর সার্বিক সহযোগিতা কামনা করে দেশের সচেতন মানুষদের এই কর্মসূচি অংশ গ্রহণ করার আহবান জানান।

গত ১৬ ফেব্রুয়ারি কক্সবাজার জেলার টেকনাফ উপজেলার জিরোপয়েন্টে শুরু হওয়া প্রতীকী লাশের মিছিল সারা দেশ ঘুরে আগামী ২৬ ফেব্রুয়ারি যশোরের বেনাপোল সীমান্ত গিয়ে শেষ হওয়ার কথা রয়েছে বলে জানান হানিফ বাংলাদেশি।

মো. হানিফ ওরফে হানিফ বাংলাদেশির বাড়ি নোয়াখালীর সুধারাম উপজেলার নিয়াজপুর ইউনিয়নের জাহানাবাদ গ্রামে। তিনি ওই গ্রামের আবদুল মান্নানের ছেলে। তার সঙ্গে থাকা অপর তিনজন হলেন- ঝালকাঠি জেলার রাজাপুরের সৌরভ হোসেন বেলাল, নোয়াখালীর বেগমগঞ্জের মো. আরিফ হোসেন ও ময়মনসিংহ জেলার ইশ্বরগঞ্জ উপজেলার এনইউ আহমেদ।

উল্লেখ্য, এর আগে শনিবার দুপুরে পঞ্চগড়ের তেতুঁলিয়া উপজেলা শহরের তেতুলতলা এলাকায় প্রতীকী লাশ নিয়ে অবস্থান ও মিছিল করেন হানিফ বাংলাদেশিসহ তার সাথে আসা তিনজন।

বিভি/রিসি

মন্তব্য করুন: