• NEWS PORTAL

  • বৃহস্পতিবার, ০২ ফেব্রুয়ারি ২০২৩

আর্জেন্টিনার জার্সি পরে বিএনপি অফিসে হামলার অভিযোগ অস্বীকার

প্রকাশিত: ১৪:১২, ৮ ডিসেম্বর ২০২২

আপডেট: ১৫:০৫, ৮ ডিসেম্বর ২০২২

ফন্ট সাইজ
আর্জেন্টিনার জার্সি পরে বিএনপি অফিসে হামলার অভিযোগ অস্বীকার

ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদের বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় বিষয়ক সম্পাদক আল আমীন রহমান। এর আগে তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হল ইউনিটের সাধারণ সম্পাদকও ছিলেন। বুধবার (৭ ডিসেম্বর) বিকালে নয়াপল্টনের কার্যলয়ের সামনের সড়কে বিএনপির নেতা-কর্মীদের ওপর গুলি চালাতে দেখা যায় আর্জেন্টার জার্সি পরা এক ব্যক্তিকে। প্রথমে সাদা পোশাকের পুলিশ মনে করা হলেও পরে ফেসবুকে ভাইরাল হয় অস্ত্র হাতে ওই ব্যক্তি ছাত্রলীগ নেতা আল আমীন রহমান। অনেকে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে তার ছবিসহ বিভন্ন কর্মকাণ্ডের ছবি দিয়ে দেখানোর চেষ্টা করেন পুলিশের সঙ্গে অস্ত্রহাতে হামলায় অংশ নেন ছাত্রলীগ ও যুবলীগের কর্মীরা। 

অ্যাকশনে আলোচিত অস্ত্রধারী

ঘটনার কয়ক ঘণ্টা পর ফেসবুকে আল আমীন দাবি করেন আর্জেন্টিনার জার্সি পরহিত ব্যক্তিটি তিনি নন। তিনি নিজেকে ব্রাজিলের একনিষ্ঠ সমর্থক বলেও দাবি করেন। আল আমীন রহমানের ফেসবুক স্ট্যাটাস হুবহু নিম্নরূপ....

'১০ তারিখ রাজধানী শহর ঢাকায় বিএনপি-জামাত দেশবিরোধী চক্রের নাশকতা প্রতিরোধে গোয়েন্দা পুলিশের সাদা পোশাকে অস্ত্র হাতে এবং হেলমেট পরা এক সদস্যের ছবিকে দেশে-বিদেশে আমার ছবি বলে বিরোধী দলের গুজববাহিনীর লোকজন ফেসবুকে ভাইরাল করে প্রাণপ্রিয় সংগঠন বাংলাদেশ ছাত্রলীগ ও আমার বিরুদ্ধে জঘন্য অপপ্রচার করছে। এ তালিকায় লন্ডনে পালিয়ে থাকা প্রোপাগান্ডা সেলের লোকজনেরও পরিচয় পাওয়া গেছে। হাস্যকর ব্যাপার হলো আমি ছোটবেলা থেকে বিশ্বকাপে ব্রাজিলের সমর্থক। আমার শত্রুও তা জানে। সাদা পোশাকে আইনশৃঙ্খলাবাহিনীর সদস্য পরে আছেন আর্জেন্টিনার জার্সি। 
উপরন্তু, আমার উচ্চতা ছয় ফুট। ছবিটা ভালো করে দেখলেই স্পষ্ট বুঝা যায়। পেছনে পুলিশের গাড়িও আছে। এ ছবি বিশ্লেষণ করে প্রকৃত ব্যক্তিকে আইডেন্টিফাই করতে বায়োলজি বা ফরেনসিক বিশেষজ্ঞ হবার দরকার নেই। একটু পর্যবেক্ষণই যথেষ্ট।

দুঃখজনক বিষয় হলো আমার উপজেলায় শ্রেষ্ঠ জননী পুরস্কার পাওয়া ফেসবুক প্রোফাইলে থাকা আমার রত্নগর্ভা মায়ের সঙ্গে ছবিটাও অপব্যবহার করছে গুজবসন্ত্রাসীরা। ভয়াবহ গুজবসন্ত্রাসীদের থেকে সবাইকে সতর্ক থাকার অনুরোধ করছি। বকশী বাজারে ছাত্রদলের নাশকতা, নানা সময় ক্যাম্পাসে সরকার বিরোধী অপতৎপরতা ও অস্থিতিশীলতা প্রতিরোধ, সাম্প্রদায়িক অপশক্তির বিরুদ্ধে অনড় অবস্থান, সর্বশেষ মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনাকে কটূক্তির সমুচিত জবাব দেওয়ার পর থেকে ছাত্রদলের সন্ত্রাসীরা আমাকে আতংক ভাবে। উল্লেখ্য, খালেদা জিয়া ও তারেক গং ছাত্রদলের হাতে তুলে দিয়েছিল অস্ত্র। তাদের সহযোগী শিবির জন্মলগ্ন থেকেই করে রগকাটা রাজনীতি। দেশের ক্যাম্পাসগুলোতে অস্ত্রের সেই ঝনঝনানি আর রগকাটা-সংস্কৃতি এখন আর নেই। জন্মলগ্ন থেকেই ছাত্রলীগ মেধার রাজনীতিতে বিশ্বাস করে। 

আল আমিন রহমানের স্ট্যাটাস

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনা আমাদের হাতে অস্ত্র নয়; কলম ও বই তুলে দিয়েছেন। সবসময় ছাত্রলীগকে দেশমাতৃকার সেবায় যোগ্য নাগরিক হিসেবে গড়ে তোলার নির্দেশনা দেন। অস্ত্র হাতে নয় বিএনপি-জামাতের যেকোনো ধরনের সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড ও নাশকতা আওয়ামীলীগ, যুবলীগ ও ছাত্রলীগের বিপুল কর্মীরা জনগণকে সঙ্গে নিয়ে রাজপথে খালি হাতেই মোকাবিলা করার সামর্থ্য রাখে। গ্রেনেড, বোমা, জঙ্গী হামলা ও অগ্নিসন্ত্রাসীদের দিন বহু আগেই শেষ হয়েছে। সংকটে আবর্তিত বিশ্বে অন্যতম সফল রাষ্ট্রনায়ক দেশরত্ন শেখ হাসিনার নেতৃত্বেই রচিত হচ্ছে উন্নত, আত্মমর্যাদাসম্পন্ন ও সমৃদ্ধ বাংলাদেশ। বাংলাদেশের অগ্রযাত্রার অতন্দ্র প্রহরী দেশরত্নের ভ্যানগার্ড হিসেবে এবং দেশবিরোধী চক্রকে রুখতে রাজপথের আন্দোলন সংগ্রামে সবসময় সোচ্চার থাকবো। অপপ্রচার ও ষড়যন্ত্র করে থামানো যাবে না। গণমানুষের কল্যাণের রাজনীতি করার শপথে আমি বলীয়ান। বঙ্গবন্ধুর দেশপ্রেমের দীক্ষা আমার রক্তে। সর্বোপরি, বঙ্গবন্ধু, বাংলাদেশ, মুক্তিযুদ্ধ ও দেশরত্ন শেখ হাসিনার প্রশ্নে আপসহীন থাকাই আমার রাজনীতির অভিষ্ট্য লক্ষ্য।'

মন্তব্য করুন: