• NEWS PORTAL

  • বৃহস্পতিবার, ১৮ এপ্রিল ২০২৪

শবে বরাতের মহান রাতেও ক্ষমা পাবেন না যে দুই ধরণের মানুষ!

প্রকাশিত: ১৮:১০, ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২৪

ফন্ট সাইজ
শবে বরাতের মহান রাতেও ক্ষমা পাবেন না যে দুই ধরণের মানুষ!

শাবান মাসের মাঝখানের এই রাতটিকে বলা হয় শবে বরাত। বিশ্বের বিভিন্ন ইসলামী চিন্তাবিদদের মতে এ রাতে আল্লাহ মানুষের প্রতি তার রহমতের দরজা উন্মুক্ত করে দেন। ফলে এ রাতকে বলা হয় গুনাহ মাফের এক সুবর্ণ সময়। কিন্তু ২ ধরণের লোক আছে যারা এই রাতেও আল্লাহর কাছে ক্ষমা পাবেন না।

পবিত্র কোরআনে আল্লাহ বার বার নিজেকে ক্ষমাশীল বলেছেন। আর শুধু শবে বরাত না। প্রতি রাতেই মহান আল্লাহ অপেক্ষা করেন তার কোন বান্দা তার কাছে ক্ষমা চায়, তাঁকে ক্ষমা করে দেয়ার জন্য। আবু হোরায়রা (র) থেকে বর্ণিত। মহানবী (স) বলেন, “আল্লাহ প্রতি রাতে প্রথম আসমানে নেমে আসে যখন রাতের দুই তৃতীয়াংশ অতিক্রম হয়। আর বলেন, “আমি বিশ্ব জগতের প্রতিপালক। এমন কেউ কি আছে যে আমাকে ডাকে যার ডাকে আমি সাড়া দিবো? এমন কেউ কি আছে যে আমার কাছে কিছু চাইবে আর আমি তাঁকে তা দিবো? এমন কেউ কি আছে যে আমার কাছে ক্ষমা চাইবে আর আমি তাঁকে ক্ষমা করে দিবো?” [সহীহ মুসলিম]

অর্থাৎ, আল্লাহ প্রতিনিয়ত অপেক্ষায় থাকেন কখন তার বান্দা ক্ষমা চাইবে, কখন তার কাছে ফিরে আসবে আর তিনি ক্ষমা করে দিবেন। কিন্তু এমন দুই শ্রেণির লোক আছে, যাদের আল্লাহ ক্ষমা করেন না। মুয়াজ ইবনে জাবাল (রা.) থেকে বর্ণিত, রাসুল (সা.) বলেন, “মধ্য শাবানের রাতে, আল্লাহ তা’আলা সৃষ্টিকুলের প্রতি রহমতের দৃষ্টি দেন এবং মুশরিক ও অন্তরে রাগ পোষণকারীকে ছাড়া সবাইকে ক্ষমা করে দেন।” [ইবনে হিব্বান, হাদিস : ৫৬৬৫]

হাদিসটিতে দুটি শ্রেণির কথা বলা হয়েছে। এক যারা আল্লাহর সাথে শিরক করে। অর্থাৎ, আল্লাহর সাথে অন্য কাউকে শরীক করে। আর এই গুনাহ খুবই মারাত্মক। যত গুলো কবীরা গুনাহের কথা আল্লাহ বলেছেন তার প্রথম ও প্রধান হচ্ছে শিরক। 

আর দ্বিতীয়টি হচ্ছে যারা অন্য কারো প্রতি মনে রাগ বা ক্ষোভ ধরে রাখে। এই গুনাহটাকে এত মারাত্মক বলা হয়েছে কারণ, যখন কেউ কারো প্রতি ক্ষোভ বা রাগ ধরে রাখে তখন সে ব্যক্তি আল্লাহর রহমত বা ইবাদত নিয়ে ভাবতে পারে না। তার মনের মধ্যে শুধুমাত্র ঘৃণা আর বিদ্বেষ থাকে। এর ফলে সে ধীরে ধীরে আল্লাহ থেকে দূরে সরে যেতে থাকে।

তাই শবে বরাতের এই পবিত্র রাতে সম্পুর্ণভাবে আল্লাহর ক্ষমা প্রাপ্তির জন্য এক আল্লাহর উপর ভরসা রাখতে হবে। তারই ইবাদত করতে হবে। আর কারও প্রতি মনের মধ্যে রাগ বা হিংসা অথবা বিদ্বেষ পোষণ করা থেকে বিরত থাকতে হবে। মহান আল্লাহ আমাদের সবাইকে সঠিক পথে চলার তৌফিক দিক।

বিভি/এজেড

মন্তব্য করুন: