• NEWS PORTAL

  • বুধবার, ১৭ এপ্রিল ২০২৪

শিশুদের আনন্দ উচ্ছ্বাসে জমজমাট বইমেলা 

মো.সাব্বির হোসেন

প্রকাশিত: ০০:০১, ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২৪

ফন্ট সাইজ
শিশুদের আনন্দ উচ্ছ্বাসে জমজমাট বইমেলা 

মায়ের সাথে মিরপুর থেকে বই মেলায় এসেছে শিশু আয়ান। মেলায় এসে অনেক খুশি। আয়ান মেলায় সিসিমপুর দেখেছে। তার পছন্দের হালুম, শিকুদের দেখেছে, হালুম মাছ এবং শাক সবজি খেতে বলেছে। তাই হালুমের মতো সেও মাছ শাক সবজি খেয়ে, সুস্থ থাকবে। 

সাপ্তাহিক ছুটির দিন বই মেলায় থাকে ‘শিশু প্রহর’। তাই সকাল থেকেই মা-বাবার হাত ধরে বই মেলায় এসেছে শিশুরা। শিশু প্রহরে তাদের জন্য থাকে বিভিন্ন অনুষ্ঠান । এর মধ্যে শিশুদের সবচেয়ে বেশি পছন্দ সিসিমপুরের মঞ্চ । 

সিসিমপুরের হালুম, টুকটুকি, ইকরি, শিকু শিশুদের খুবই পছন্দের চরিত্র। বই মেলায় টিভির পছন্দের চরিত্রগুলো বাস্তবে দেখে আনন্দ উচ্ছ্বাস ছিল শিশুদের চোখে মুখে। 

বইপড়া পুষ্টিকর খাবার খাওয়া ভালো কাজ করাসহ শিশুদের মানসিক বিকাশে নানান শিক্ষণীয় বিষয় সিসিমপুরের মঞ্চে উপস্থাপন হয় খেলার ছলে। 

অনুষ্ঠানে টুকটুকি, হালুম,ইকুরি, শিকুদের সাথে হেসে খেলে নেচে গান গেয়ে শেষ হয় শিশুদের সিসিমপুরের পর্ব। তারপর শিশুরা যায় অভিভাবকদের সাথে মেলার বইরের দোকানগুলোতে । ক্রয় করেন পছন্দের বই । 

শিশু তুষা বাবার সাথে বই মেলা এসেছে মেলায় তার খুবই ভালো লেগেছে, অনেকগুলো বই এক সাথে দেখতে পেয়েছে মেলায়। চাঁদের বুড়ি, মাথায় কত প্রশ্ন জাগে, ছোটদের ভূতের গল্প, পঞ্চাশটি বিজ্ঞানি প্রজেক্টর বইসহ ৬টি বই কিনেছে। তার গল্পের বই অনেক ভালো লাগে। 

তুষার বাবা আব্দুস সালাম বলেন, প্রযুক্তির যুগে শিশুরা ডিভাইস নির্ভর হয়ে পড়ছে। বই পড়ার মজা থেকে শিশুরা দূরে সরে যাচ্ছে। তাই অভিবাকদের অবশ্যই শিশুদের বই মেলায় আনা এবং শিশুদের বই পড়তে উৎসাহ দেওয়া জরুরি। বই মেলার পরিধি বৃদ্ধি করা জরুরি বলে তিনি মনে করেন । 

আয়েশা এসেছে বাবা-মায়ের সাথে গাজিপুর থেকে, সে কিনেছে মিনা রাজু , গোপাল ভাড়, গল্পগুলো ছোটদেরসহ কয়েকটি গল্পের বই ।

রাইহান এবং আয়ান বাবা সাথে এসেছে কেরারীগঞ্জ থেকে মেলায় সিসিমপুর দেখে তারা অনেক খুশি। মেলা ঘুরে বই দেখবে খেলাধুলা, সাইন্স ফিকশনের বই কিনবে । 

তাদের বাবা আতিকুর রহমান বলেন, তার দুই ছেলে সিসিমপুর দেখে খুবই আনন্দিত। তিনি জানান তার ছেলেরা টিভিতে সিসিমপুর দেখে। এটি তার ছেলেদের পছন্দের অনুষ্ঠান আজ শিশু প্রহরে টিভির চরিত্রগুলো বাস্তবে দেখে অনেক উপভোগ করেছে ছেলেরা। হেসে খেলে অনেক কিছু শিখেছে। তিনি মনে করেন শিশুদের জন্য শিক্ষা ব্যবস্থা এমন হওয়া প্রয়োজন। 

শিশু গ্রন্থ কুটিরের বিক্রয়কর্মী মুনীশা বলেন, শিশুরা সাইন্স ফিকশন, কার্টুন, ভুতের গল্প, ছড়া, কবিতার বই বেশি কিনছে। আজ শিশু প্রহর তাই মেলায় শিশুদের উপস্থিতি বেশি এবং শিশুদের বই বেশি বিক্রয় হচ্ছে। 

টুনটুনি প্রকাশনীর বিক্রয়কর্মী তাহমিনা আক্তার শান্তা বলেন, বিভিন্ন ধরণে গল্পের বই কিনছে শিশুরা বিশেষ করে ছেলে বাচ্চারা খেলাধুলা, সাইন্স ফিকশনের বই বেশি কিনছে। 

মাসব্যাপী বই মেলায় সপ্তাহের দু'দিন শুক্র ও শনিবার বেলা ১১টা থেকে দুপুর ১টা পর্যন্ত থাককে শিশুদের জন্য,‘শিশু প্রহর’।

বিভি/রিসি

মন্তব্য করুন: