• NEWS PORTAL

  • বুধবার, ১৭ এপ্রিল ২০২৪

ইউক্রেনে হামলার ২ বছর, একের পর এক গ্রাম যেন মৃত্যুপুরী

প্রকাশিত: ১৫:৩৫, ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২৪

ফন্ট সাইজ

দুই বছর পেরিয়ে ইউক্রেনে চলমান যুদ্ধ গড়িয়েছে তৃতীয় বছরে। দীর্ঘ এই সময়ে  রুশ আগ্রাসন ও ইউক্রেনের পাল্টা হামলায় ঘটেছে অসংখ্য মানুষের প্রাণহানি, বাস্তুচ্যুত হয়েছেন লাখো মানুষ। আর যুদ্ধের ভয়াবহ ক্ষত হৃদয়ে নিয়ে এখনো বেঁচে আছেন হাজারো মানুষ।

পশ্চিম ইউক্রেনের খারকিভ অঞ্চলের হ্রোজা এলাকা। রাশিয়ার একের পর এক বিমান হামলায় ধ্বংসস্তূপে পরিণত হয়েছে গোটা গ্রামটি। গ্রামটিতে রয়েছে একটি কবরস্থান। যেখানে শুয়ে আছেন ৫৯ জন ইউক্রেনীয় নাগরিক। যাদের সবাই গত অক্টোবরে রাশিয়ার ছোঁড়া একটি রকেট হামলাতেই মৃত্যুবরণ করেছেন। 

যে জায়গাটিতে এখন যুদ্ধের ধ্বংসাবশেষ পরিষ্কার করা হচ্ছে, সে জায়গাটিতেই আগে দাঁড়িয়ে ছিলো একটি ক্যাফে। যুদ্ধের তান্ডবে এখন সেটি শুধুই একটি ধ্বংসস্তূপ। 

অন্যান্য শহরগুলোতেও বিরাজ করছে একই রকম উদ্বেগ। যুদ্ধের আগে আভদিভকায় ৩০ হাজার বাসিন্দা ছিলেন। তবে বর্তমানে শহরটির সব বাসিন্দা সরে গেছেন। যুদ্ধ বিধ্বস্ত আভদিভকা থেকে প্রায় ৪৫ কিলোমিটার উত্তর-পশ্চিমের শহর পোকরোভস্কে পাড়ি জমিয়েছেন অনেক বেসামরিক নাগরিক। তাদেরই একজন ল্যারিসা। এখানে পালিয়ে এলেও স্বস্তিতে নেই তিনি। ভাবছেন অন্য কোথাও পালিয়ে যাওয়ার কথা।

ভালো নেই যুদ্ধে আক্রান্ত রাশিয়ার সীমান্তবর্তী এলাকার বাসিন্দারাও। ইউক্রেনের সীমান্ত থেকে মাত্র পাঁচ কিলোমিটার দূরে ছোট একটি রাশিয়ান শহর শেবেকিনো। গত জুন মাসে, শহরের কেন্দ্রীয় এলাকায় চলে ইউক্রেনীয় বিমান হামলা। শহরটির মেয়র সার্জেই বোচারনিকভ। জানালেন, শহরের কিছু অংশ জ্বলন্ত ধ্বংসস্তূপে পরিণত হয়েছে এবং তার অফিসও বোমা হামলায় ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

সট - আসুন, এই  ফ্রিজটি দেখুন। আশ্চর্যজনক এক দৃশ্য। শ্রাপনেলটি খেয়াল করুন। এটি এখানেই পড়েছিল। ফ্রিজে আঘাত করেছিল, এখনও এখানেই রয়ে গেছে। এবং এর মধ্যেই গলে গেছে।

মূলত যুদ্ধের দ্বিতীয় বার্ষিকীতে এক কঠিন সময়ের মুখোমুখি ইউক্রেন। নিজ দেশের ভূখণ্ড থেকে রাশিয়াকে বিতাড়িত করার প্রচেষ্টায় বিভিন্ন ধরনের বিপর্যয়ের সম্মুখীন হয়েছে ইউক্রেন। কয়েক মাস ধরেই অস্ত্রের অভাবে ভুগছে ইউক্রেন। সবচেয়ে বড় অস্ত্র সরবরাহকারী দেশ যুক্তরাষ্ট্র ও অন্যান্য মিত্ররা অস্ত্র দিতে দেরি করায় এমন পরিস্থিতিতে পড়েছে কিয়েভ। চলমান যুদ্ধে ৩১ হাজার ইউক্রেনীয় সেনা প্রাণ হারিয়েছেন বলে জানিয়েছেন দেশটির প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি

বর্তমানে ইউক্রেনের ১৮ শতাংশ অঞ্চল রুশ নিয়ন্ত্রণে, যার মধ্যে ২০১৪ সালের মার্চে দখল করা ক্রিমিয়া, দোনেৎস্ক ও লুহানস্ক অঞ্চলের বিরাট অংশও রয়েছে।

বিভি/এমএফআর

মন্তব্য করুন: