• NEWS PORTAL

  • বৃহস্পতিবার, ১৮ এপ্রিল ২০২৪

‘একুশের চেতনায় বাংলাদেশ এগিয়ে যাক আরও সমৃদ্ধির দিকে’

আবু হুরায়রা

প্রকাশিত: ১৯:৩১, ২১ ফেব্রুয়ারি ২০২৪

ফন্ট সাইজ
‘একুশের চেতনায় বাংলাদেশ এগিয়ে যাক আরও সমৃদ্ধির দিকে’

আজকের দিনটি আমাদের জাতির ইতিহাসে একটি স্মরণীয় দিন। ১৯৫২ সালের এই দিনে বাংলা ভাষাকে রাষ্ট্রভাষা করার দাবিতে ঢাকার রাস্তায় নেমে এসেছিলেন তরুণ ছাত্ররা। পুলিশের লাঠি ও গুলির বর্ষণে নিহত হন বহু নিরপরাধ ছাত্র। তাদের আত্মত্যাগের বিনিময়ে আমরা পেয়েছি আমাদের মাতৃভাষার অধিকার। এই ভাষার মাসে গণ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের ভাবনা তুলে ধরেছেন আবু হুরায়রা।

'ফেব্রুয়ারি বাঙালি জাতির গৌরব ও ঐতিহ্যের মাস'

আজ ৮ই ফাল্গুন, যাকে আমরা ২১শে ফেব্রুয়ারি হিসেবে জানি। বইছে বসন্ত, কৃষ্ণচূড়ার মাথায় ফুটে রক্ত রঙের পুষ্পরাজি, যা বাতাসে দুলে মনে করিয়ে দেয় একুশের ভাষা শহীদদের কথা,ভাষা সংগ্রামের কথা। ফেব্রুয়ারি মানেই বাঙালি জাতির গৌরবময় ও ঐতিহ্যের মাস। ১৯৫২ সালের এই দিনে বাংলা ভাষাকে রাষ্ট্রভাষা করার দাবিতে ঢাকার রাস্তায় নেমে এসেছিলেন তরুণ ছাত্ররা। পুলিশের নির্বিচারে লাঠিচার্জ ও গুলিবর্ষণের কারণে নিহত হয় অনেক নিরপরাধ সংগ্রামী শিক্ষার্থী। তাদের আত্মত্যাগের বিনিময়ে আমরা পেয়েছি আমাদের মাতৃভাষার অধিকার। আজ সারাদেশে পালিত হচ্ছে "আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা " দিবস। এ ভাষার জন্য সালাম, রফিক বরকত সহ যারা শহীদ হয়েছেন, তাদের সবার জন্য রইলো সহস্র সালাম এবং ভালোবাসা।

শাকিল আহমেদ,
৩য় বর্ষ,
ফলিত গণিত বিভাগ।

'ভাষা আন্দোলন জাতিসত্তার প্রতীক'

আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হল একুশে ফেব্রুয়ারি বাংলাদেশ ও পশ্চিমবঙ্গসহ সমস্ত বাংলাভাষী অঞ্চলে পালিত একটি বিশেষ দিবস, যা ১৯৯৯  সালে ১৭ নভেম্বরে জাতিসংঘ কর্তৃক গৃহীত সিদ্ধান্ত অনুযায়ী প্রতিবছর ২১শে ফেব্রুয়ারি বিশ্বব্যাপী পালন করা হয়। এটি শহীদ দিবস হিসাবেও পরিচিত। এ দিনটি বাঙালি জনগণের ভাষা আন্দোলনের গৌরবোজ্জ্বল স্মৃতিবিজড়িত একটি দিন হিসেবে চিহ্নিত হয়ে আছে। ১৯৫২ সালের এই দিনে বাংলা ভাষাকে রাষ্ট্রভাষা করার দাবিতে ঢাকার রাস্তায় নেমে এসেছিলেন তরুণ ছাত্ররা। পুলিশের লাঠি ও গুলির বর্ষণে নিহত হন বহু নিরপরাধ ছাত্র। তাদের আত্মত্যাগের বিনিময়ে আমরা পেয়েছি আমাদের মাতৃভাষার অধিকার। ভাষা আন্দোলন আমাদের জাতিসত্ত্বার প্রতীক। ১৯৫২ সালের একুশে ফেব্রুয়ারি যেন চেতনায় উদ্দীপিত হয়ে বাঙালিরা রক্ত দিয়ে মাতৃভাষাকে মর্যাদার আসনে প্রতিষ্ঠিত করেছিল, আজ তা দেশের গন্ডি পেরিয়ে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের স্বীকৃতি লাভ করেছে । একুশে ফেব্রুয়ারি আমাদের শিখিয়েছে আত্মত্যাগের মন্ত্র, বাঙালিকে করেছে মহীয়ান। মহান ভাষা আন্দোলনের পথ বেয়ে এসেছে বহু আকাঙ্ক্ষিত স্বাধীনতার চেতনা । যে চেতনার হাত ধরে বাংলাদেশ এগিয়ে যাবে সমৃদ্ধ আগামীর দিকে ।

নুসরাত জাহান জিদনী,
২য় বর্ষ,
মেডিকেল ফিজিক্স এন্ড বায়োমেডিকেল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগ। 

একুশে ফেব্রুয়ারি: বাঙালি জাতিসত্তার অবিচ্ছেদ্য অংশ

২১ শে ফেব্রুয়ারি, আমাদের জাতিসত্তার এক অবিচ্ছেদ্য অংশ। এই দিনটি আমাদের মনে করিয়ে দেয় ভাষার মর্যাদা, ভাষার জন্য আত্মত্যাগের বীরত্ব এবং ভাষার অধিকার আদায়ের সংগ্রাম। এই দিনে আমরা মনে করি সেই সাহসী যুবকদের কথা, যারা তাদের মাতৃভাষার অধিকার আদায়ের জন্য নিরস্ত্র অবস্থায় প্রাণ দিয়েছিলেন। তাদের আত্মত্যাগ আমাদের মনে দৃঢ় বিশ্বাস জাগিয়ে তোলে যে, ভাষার চেয়ে মূল্যবান কিছু নেই। এই দিনটি আমাদের ঐক্যবদ্ধ করে, আমাদের মধ্যে ভ্রাতৃত্ববোধ জাগ্রত করে। এই দিনে আমরা শুধু শহীদদের স্মরণ করি না, বরং আমরা আমাদের ভাষার প্রতি দায়িত্বও উপলব্ধি করি। আমরা প্রতিজ্ঞা করি যে, আমরা আমাদের ভাষাকে সমৃদ্ধ করবো, আমাদের ভাষার মর্যাদা রক্ষা করবো। আমি একজন বাঙালি, আমার ভাষা বাংলা, আমার গর্ব আমার ভাষা। এই দিনটি আমাকে মনে করিয়ে দেয় যে, আমার ভাষার জন্য আমার জীবন উৎসর্গ করতে আমি প্রস্তুত।

তানজিনুর আক্তার
২য় বর্ষ,  
বায়োকেমিস্ট্রি এন্ড মলিকুলার বায়োলজি বিভাগ

'ভাষা হোক অহংকারের'

মাতৃভাষার মাধ্যমে একটি জাতি যত সহজ সাবলীল এবং  সুন্দরভাবে প্রকাশ করতে পারে অন্য ভাবে তা প্রকাশ করতে পারে না। বাংলা আমার মাতৃভাষা, বাংলা আমার মায়ের মুখের ভাষা। এই প্রিয় মাতৃভাষা রক্ষার জন্য ১৯৫২ সালের একুশে ফেব্রুয়ারি বাংলার ছাত্র, যুবক তথা আমজনতা ভাষার দাবিতে পশ্চিম পাকিস্তানের শাসক গোষ্ঠীর বিরুদ্ধে আন্দোলনে ঝাঁপিয়ে পড়ে। অবশেষে সালাম, জব্বার, রফিক, বরকতসহ অনেক শহীদের বুকের তাজা রক্তে ভাষার দাবি প্রতিষ্ঠিত হয়। পৃথিবীর অন্য কোন জাতি ভাষা রক্ষার্থে রক্ত দিয়েছে কিনা তা অজানা। একমাত্র বাঙালীরাই তার ব্যতিক্রম। বাংলা ভাষা আমার অহংকার, বাংলা ভাষা আমার গর্বের। এই ভাষা আন্দোলনের মাধ্যমেই এই জাতি অন্যায়ের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ এবং  তাদের অধিকার আদায় করতে শেখায়। যার বিনিময়ে পশ্চিম পাকিস্তান শোষণ হতে মুক্তি পেয়ে জন্ম লাভ করেছে একটি স্বাধীন দেশ, বাংলাদেশ।  বিশ্বের দরবারে আমরা  পরিচিত হই স্বাধীন জাতি  হিসেবে। 

ভাষা হোক মাধুর্যের, ভাষা হোক প্রতিবাদের ভাষা হোক অহংকারের । একুশের চেতনা ছড়িয়ে পড়ুক সকল জাতির উপর। 

মো:হাফিজউল্লাহ (হৃদয়), 
৩য় বর্ষ, 
ভেটেরিনারি এন্ড এনিমেল সায়েন্সেস।

লেখক: শিক্ষার্থী, গণ বিশ্ববিদ্যালয়

(বাংলাভিশনের সম্পাদকীয় নীতিমালার সঙ্গে লেখকের মতামতের মিল নাও থাকতে পারে। প্রকাশিত লেখাটির আইনগত, মতামত বা বিশ্লেষণের দায়ভার সম্পূর্ণরূপে লেখকের, বাংলাভিশন কর্তৃপক্ষের নয়। লেখকের নিজস্ব মতামতের কোনো প্রকার দায়ভার বাংলাভিশন নিবে না।)

বিভি/এজেড

মন্তব্য করুন: