• NEWS PORTAL

  • বৃহস্পতিবার, ৩০ জুন ২০২২ | ১৬ আষাঢ় ১৪২৯

বসুন্ধরা গ্রুপের ভাইস চেয়ারম্যান পরিচয় দিয়ে প্রতারণা

প্রকাশিত: ২১:৫০, ২২ জুন ২০২২

ফন্ট সাইজ
বসুন্ধরা গ্রুপের ভাইস চেয়ারম্যান পরিচয় দিয়ে প্রতারণা

তিনি নিজেকে পরিচয় দেন 'ওয়ান অব দ্য ইয়াংগেস্ট ম্যানেজিং ডিরেক্টর' এবং দেশের বৃহত্তম শিল্পগোষ্ঠী বসুন্ধরা গ্রুপের 'ভাইস চেয়ারম্যান' হিসেবে। তার বিরুদ্ধে ভুয়া এই পরিচয় ব্যবহার করে সাধারণ মানুষকে হয়রানি ও প্রতারণার অভিযোগ উঠেছে।

এই ব্যক্তির এমনকি ভুয়া জাতীয় পরিচয়পত্রও রয়েছে। তাতে লেখা: নাম সিয়াম সোবহান সানভির (Siam Sobhan Sanvir), পিতা : আহমেদ আকবর সোবহান, মাতা : আফরোজা সোবহান। জন্ম তারিখ : ২ ডিসেম্বর, ১৯৯২। জাল এই জাতীয় পরিচয়পত্রটির নম্বর ৩৭৫৪৮৯৫৯৩৩। তাতে থাকা ঠিকানা: বাসা/হোল্ডিং ১৪৩, গ্রাম/রাস্তা বসুন্ধরা, ডাকঘর-ভাটারা, ভাটার, ঢাকা। জাতীয় পরিচয়পত্র ২ মে, ২০১৭ সালে হস্তান্তর করা হয় বলে উল্লেখ করা হয়েছে।

তিনি নিজেকে ফ্লুজি গার্মেন্টস নামের একটি অস্তিত্ববিহীন প্রতিষ্ঠানেরও চেয়ারম্যান হিসেবে দাবি করছেন। এসব ভুয়া তথ্য দিয়ে বেশ কয়েকটি ফেসবুক আইডি, ফেসবুক পেজ, ইউটিউব চ্যানেল, টুইটার ও লিংকডইন অ্যাকাউন্ট খুলেছেন।

বসুন্ধরা গ্রুপের 'ভাইস চেয়ারম্যান' পরিচয় দেওয়া এ ব্যক্তির বিরুদ্ধে সাধারণ মানুষকে হয়রানি ও প্রতারণার অভিযোগ উঠলে আইনি ব্যবস্থা চেয়ে বুধবার (২২ জুন) রাজধানীর ভাটারা থানায় বসুন্ধরা গ্রুপের পক্ষ থেকে সাধারণ ডায়েরি করা হয়েছে। ডায়েরিটি করেন বসুন্ধরা গ্রুপের প্রতিষ্ঠান ইডাব্লিউপিডির সিনিয়র অফিসার দেলদার আহমেদ।

ডায়েরিতে বলা হয়েছে, ‘সিয়াম সোবহান সানভির নামের এক ব্যক্তি ফেসবুক, ইনস্টাগ্রাম ও ইউটিউবে বসুন্ধরা গ্রুপের ভাইস চেয়ারম্যান পরিচয় দিয়ে একটি অ্যাকাউন্ট খুলেছেন। সেই অ্যাকাউন্ট ও ফেসবুক পেজ থেকে বসুন্ধরা গ্রুপের ব্যবসা সংক্রান্ত যাবতীয় বিষয়ে পোস্ট দিচ্ছেন। যার প্রমাণ সংযুক্তিতে দেওয়া হলো। এ ছাড়া বসুন্ধরা গ্রুপের চেয়ারম্যান আহমেদ আকবর সোবহানকে নিজের পিতা ও আফরোজা সোবহানকে মাতা পরিচয় দিয়ে সিয়াম সোবহান সানভির জাতীয় পরিচয়পত্র তৈরি করেছেন। সম্প্রতি বিষয়টি আমাদের গোচরীভূত হয়। এমনকি সানভির নামের লোকটি অসামাজিক কর্মকাণ্ডের সঙ্গে জড়াচ্ছে বলেও নানা জায়গা থেকে খবর পাওয়া যাচ্ছে।

এ ছাড়া Siam Sobhan Sanvir নামের ইউটিউব চ্যানেল থেকে নিয়মিত ভিডিও প্রকাশ করা হচ্ছে। এসব কর্মকাণ্ড বসুন্ধরা গ্রুপের সুনাম ক্ষুণ্ন করছে।  

তার ফেসবুকের আইডি : https://www.facebook.com/siamsobhan.sanvir
তার ফেসবুক পেজ : https://www.facebook.com/siamsobhan.sanvir
ইনস্টাগ্রাম অ্যাকাউন্ট : https://www.instagram.com/siamsobhan/
ইউটিউব লিংক : https://www.youtube.com/c/SiamSobhanSanvir 
লিংকডইন : https://www.linkedin.com/in/siam-sobhan-sanvir-90b39a232/

ডায়েরিতে আরও বলা হয়, প্রতারকের দুটি মোবাইল নম্বর ওয়েবসাইটে পাওয়া যাচ্ছে। এগুলো হচ্ছে ০১৮৩৭৬৮৬০৭৭, ০১৯৮৪৫৯৪৮৪৪।  

কালের কণ্ঠ থেকে ফোন করে দুটি নম্বরই বন্ধ পাওয়া গেছে। ট্রুকলারে অনুসন্ধান করে দেখা যায় ০১৮৩৭৬৮৬০৭৭ নম্বরটি Sanvir Sobhan নামে সেভ করা।

পাওয়া গেছে অভিযুক্তের টুইটার অ্যাকাউন্টও। https://www.twitter.com/SiamSobhan-টুইটারের এই লিংকে ঢুকে দেখা যায় কভার ছবির এক পাশে বড় করে লেখা : Siam Sobhan Sanvir, Vice Charman of Bashundhara Group.

তার ফেসবুক পেজ www.facebook.com/siamsobhan ঘুরে দেখা যায়, তিনি নিজের ছবি দিলেও বসুন্ধরা গ্রুপের লোগোর সঙ্গে নিজেকে বসুন্ধরা গ্রুপের ভাইস চেয়ারম্যান পরিচয়ে শুভেচ্ছা জানাচ্ছেন।

একটি পোস্টে লেখা : প্রচণ্ড শীত কিংবা ঝড়-বৃষ্টি যা-ই থাক, প্রতিদিন সূর্যের আলো  ফোটার আগেই জনগণের হাতে পৌঁছে যায় দেশের খবর। কিন্তু প্রতিনিয়ত যারা এই কাজ করেন তাদের খবর রাখে না কেউ, হাজারো কষ্টে কাউকে পাশে পান না তারা। বলছি পত্রিকার হকারদের কথা। বরাবরের মতো গণমাধ্যমের অন্তরালের এই নায়কদের পাশে দাঁড়ানোর ঘোষণা দিয়েছে দেশের শীর্ষ শিল্পগোষ্ঠী বসুন্ধরা গ্রুপ। দুর্ঘটনা-অসুস্থতাসহ যে কোনো বিপদে সারা দেশের ১৫ হাজারের বেশি হকারের পাশে থাকবে বসুন্ধরা।

অভিযুক্তের ফেসবুকের একটি প্রোফাইল আইডির পরিচয় হিসেবে লেখা : Vice Chairman at Bashundhara Group, Studied at New York University, Went to New York Military Academy, Lives in New City, New York.

জানা যায়, সম্প্রতি এই প্রতারকের প্রতারণার শিকার হন দুই তরুণী। কালের কণ্ঠ অনলাইনের হাতে আসা একটি লিখিত অভিযোগপত্রে দেখা যায়, সম্প্রতি এক রিসোর্টে এই 'ইয়াংগেস্ট ম্যানেজিং ডিরেক্টর'-এর নামে ৭০ হাজার ৩৮ টাকার বিল আসে। এই প্রতারক ব্যাংক থেকে টাকা তুলে নিয়ে আসছেন বলে বের হয়ে যান এবং যাওয়ার সময় দুই তরুণীর একজনের একটি দামি আইফোন নিয়ে যান। এ ঘটনায় ১১ জুন থানায় লিখিত অভিযোগ করেছেন তারা। থানায় অভিযোগের সত্যতা স্বীকার করেন অভিযোগকারী এক তরুণী।  

বিভি/এনএ

মন্তব্য করুন: