• NEWS PORTAL

  • বৃহস্পতিবার, ১৩ জুন ২০২৪

Inhouse Drama Promotion
Inhouse Drama Promotion

দরজা ভেঙ্গে জবি শিক্ষার্থীর ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার

মনির হোসেন, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়

প্রকাশিত: ১৭:৫৯, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২৩

ফন্ট সাইজ
দরজা ভেঙ্গে জবি শিক্ষার্থীর ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের (জবি) মেহেদী হাসান রাব্বি নামের এক শিক্ষার্থী গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছে। নিহত রাব্বি বিশ্ববিদ্যালয়ের একাউন্টিং এন্ড ইনফরমেশন সিস্টেমস বিভাগের ১২ ব্যাচের শিক্ষার্থী।

নিহত মেহেদী'র গ্ৰামের বাড়ি ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর উপজেলার কলেজ পাড়া এলাকাযর নিজ বাসায় সোমবার (১৮ সেপ্টেম্বর) দুপুরে তাঁর মরদেহ ঝুলন্ত অবস্থায় পাওয়া যায়।

প্রত্যক্ষদর্শী জানান, রবিবার রাতে মেহেদী দরজা বন্ধ করে নিজ কক্ষে ঘুমাতে যান, সোমবার সকালে রাব্বিকে পরিবারের সদস্যরা ঘুমানো অবস্থায় দেখেন। কিন্তু দুপুরে তাঁর দরজা বন্ধ দেখে পরিবারের সদস্যদের সন্দেহ হয়। অনেক চেষ্টা করে দরজা খুলতে না পেরে। শেষে দরজা ভেঙ্গে দেখেন মেহেদী হাসান রাব্বি'র মরদেহ ঝুলন্ত অবস্থায় রয়েছে। ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা সদর হাসপাতালে নেওয়া হলে মৃত ঘোষণা করা হয়।

রাব্বির মৃত্যুতে পরিবারের শোকের ছায়া নেমেছে। পরিবারের সদস্যদের সাথে বারবার যোগাযোগের চেষ্টা করেও কথা বলা সম্ভব হয়নি।

এই বিষয়ে জবিস্থ ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা ছাত্র কল্যাণ পরিষদের সভাপতি আমিনুল ইসলাম বাবু বলেন, নিহত মেহেদী হাসান রাব্বি জবিস্থ ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা ছাত্র কল্যাণ পরিষদের সহ-সভাপতি পদে ছিলেন। আমরা জানতে পারি গত রাতে সে নিজ রুমে ঘুমাতে যান,  দুপুর পর্যন্ত তাঁর রুম বন্ধ থাকলে পরিবারের সদস্যদের সন্দেহ হয় । তখন তাঁরা দরজা ভেঙ্গে দেখে মেহেদী'র মরদেহ ঝুলন্ত অবস্থায় রয়েছে। আমরা ঘটনায় খুব শোকাহত।

নিহত মেহেদী'র বিষয়ে তাঁর বিভাগীয় চেয়ারম্যান অধ্যাপক মোহাম্মদ শফিকুল ইসলাম বলেন, ছেলেটি আমার নিজ জেলা ব্রাহ্মণবাড়িয়ার হওয়ার কারণে কাছ থেকে চিনি। সে খুব অমায়িক ছেলে ছিল। আমি যতটুকু জানি তার প্রেম ঘটিত এবং অর্থনৈতিক কোনো সমস্যা ছিল না। ১ বছর আগে তার বাবা মারা যান। এজন্য তার মন খারাপ ছিল । আমি সবসময় চেষ্টা করেছি খোঁজ খবর রাখার কিন্তু মাঝে সে আর কিছু জানায়নি। বর্তমানে ছেলে মেয়েরা কষ্টগুলো শেয়ার করতে না পারায় হতাশায় থাকে। আমরা ছেলে মেয়েদের জন্য পৃথক পৃথক কাউন্সিলিং এর ব্যবস্থা করেছি। ছেলে মেয়েদের সুবিধার জন্য জেলা ছাত্র কল্যাণে আমি নিয়মিত সময় দিই। খবর পাওয়া মাত্রই আমি ব্রাহ্মণবাড়িয়া উদ্দেশ্য রওনা হয়েছি। 

একই বিষয়ে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় প্রক্টর অধ্যাপক ড. মোস্তফা কামাল বলেন, এই ঘটনায় আমি এখনো অবগত নই। অবগত হওয়ার পর বিস্তারিত বলতে পারবো।

বিভি/রিসি

মন্তব্য করুন: