• বৃহস্পতিবার, ২৬ মে ২০২২ | ১১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯

মুসলিম হওয়ায় ব্রিটেনে মন্ত্রীত্ব হারানোর অভিযোগ নারী মন্ত্রীর

প্রকাশিত: ১৯:৪১, ২৪ জানুয়ারি ২০২২

আপডেট: ২০:২২, ২৪ জানুয়ারি ২০২২

ফন্ট সাইজ
মুসলিম হওয়ায় ব্রিটেনে মন্ত্রীত্ব হারানোর অভিযোগ নারী মন্ত্রীর

নুসরাত গনি

করোনাভাইরাস মহামারির মধ্যে ডাউনিং স্ট্রিটে পানাহারের আয়োজন করে বিপাকে রয়েছেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন। টানাটানি চলছে তার প্রধানমন্ত্রীত্ব নিয়ে। এর মধ্যেই এবার আরেক অভিযোগ উঠেছে তাঁর মন্ত্রীসভার বিরুদ্ধে। মুসলমান হওয়ার ‘দায়ে’ মন্ত্রীসভা থেকে এক নারী মন্ত্রীকে বরখাস্ত করা হয়েছে, এমন অভিযোগ নিয়ে প্রকাশ্যে মুখ খুলেছেন ওই সাবেক মন্ত্রী। 

শনিবার (২২ জানুয়ারি) রয়টার্সের এক প্রতিবেদনে বলা হয়, নুসরাত গনি নামে ওই নারী মন্ত্রিসভায় জুনিয়র পরিবহন মন্ত্রী হিসেবে কর্মরত ছিলেন। তিনি ব্রিটেনের প্রথম মুসলমান নারী মন্ত্রী। ২০২০ সালে ফেব্রুয়ারি মাসে তাঁকে চাকরিচ্যুত করা হয়। 

সংবাদমাধ্যমকে গনি জানিয়েছেন, একজন মুসলিম হওয়াই তাঁকে বরখাস্ত করার মূল কারণ হিসেবে দেখিয়েছেন ব্রিটিশ পার্লামেন্টের একজন হুইপ। সেই হুইপের নাম অবশ্য প্রকাশ করেননি গনি। গনি বলেন, ‘মুসলমান নারী মন্ত্রীর’ এই পদমর্যাদা তার সহকর্মীদের অস্বস্তিতে ফেলছিলো বলেই তাঁকে বরখাস্ত করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে, এমনটাই জানানো হয়েছিলো তাঁকে। 

আরও পড়ুন:
বিমানের চাকায় চড়ে আফ্রিকা থেকে ইউরোপ!

সেনাবাহিনীর হাতে বন্দি হলেন বুরকিনা ফাসোর প্রেসিডেন্ট 

তবে অভিযোগ অস্বীকার করে চিফ হুইপ মার্ক স্পেন্সার জানিয়েছেন, তাঁকে উদ্দেশ্য করেই এ অভিযোগ এনেছেন গনি। মানহানির উদ্দেশ্যেই এ অভিযোগ করা হয়েছে বলে দাবি তাঁর। 

তিনি আরও বলেন, গত মার্চে প্রথমবার বিষয়টি নিয়ে কথা তুলছিলেন গনি। তবে তখন তিনি এ ব্যাপারে আনুষ্ঠানিক তদন্ত করতে অস্বীকৃতি জানান। 

এদিকে দলের আরও কিছু সদস্য দাবি করেছেন, করোনার মধ্যে পার্টি আয়োজন করায় যারা জনসনের পদত্যাগ দাবি করছেন, তাদেরকেও হুমকি-ধমকি দেওয়া হয়েছে। 

এর আগেও বরিস জনসনের রক্ষণশীল দলের বিরুদ্ধে ইসলাম বিদ্বেষের অভিযোগ আনা হয়েছে। মুসলমানদের বিরুদ্ধে বৈষম্যের যথাযথ বিচার না করার অভিযোগও রয়েছে দলটির বিরুদ্ধে। এমনকি, বোরখা পরা নারীদের 'চিঠির বাক্সের' সাথে তুলনা করে আনুষ্ঠানিকভাবে ক্ষমা চাইতেও বাধ্য হয়েছিলেন বরিস। 

বিভি/এসডি

মন্তব্য করুন: