• NEWS PORTAL

শুক্রবার, ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৪

কর্ণাটকে হিজাব পড়া নিয়ে নতুন সিদ্ধান্ত জানাবে কংগ্রেস সরকার

প্রকাশিত: ১০:২২, ২৬ মে ২০২৩

ফন্ট সাইজ
কর্ণাটকে হিজাব পড়া নিয়ে নতুন সিদ্ধান্ত জানাবে কংগ্রেস সরকার

ভারতের কর্ণাটক রাজ্যে সদ্য ক্ষমতায় আসা কংগ্রেস সরকার জানিয়েছে, তারা বিগত বিজেপি সরকারের আনা বেশ কিছু বিতর্কিত বিল প্রত্যাহার করতে চায়। যার মধ্যে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে হিজাব নিষিদ্ধ করার মতো পদক্ষেপও আছে।

কর্ণাটকে ধর্মান্তরকরণ বিরোধী বিল, গোহত্যা বিরোধী বিলসহ যে সব আইন নিয়ে সাম্প্রতিক অতীতে তীব্র রাজনৈতিক বিতর্ক হয়েছে, সেগুলোও তুলে নেওয়ার কথা ভাবছে কংগ্রেস সরকার। এক টুইটে এমনই ইঙ্গিত দিয়েছেন কর্ণাটকে কংগ্রেস মন্ত্রিসভার সিনিয়র সদস্য ও দলের জাতীয় সভাপতি মল্লিকার্জুন খাড়গের ছেলে প্রিয়াঙ্ক খাড়গে।

এক টুইটে প্রিয়াঙ্ক জানান, ‘আগের বিজেপি সরকারের আনা যে সব বিল রাজ্যের ভাবমূর্তিতে বিরূপ প্রভাব ফেলছে, লগ্নি নিরুৎসাহিত করছে, কর্মসংস্থান তৈরি করছে না এবং যেগুলো অসাংবিধানিক, ব্যক্তি অধিকারের লঙ্ঘন, সেগুলো পুনর্বিবেচনার জন্য সরকার দৃঢ়ভাবে অঙ্গীকারাবদ্ধ।’

তিনি আরও জানান, কংগ্রেস এমন একটি কর্ণাটক গড়ে তুলতে চায় যেখানে ‘অর্থনৈতিক ও সামাজিক সাম্য’ থাকবে।

যদিও এই টুইটে নাম করে নির্দিষ্ট কোনো বিলের কথা উল্লেখ করা হয়নি, পরে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে প্রিয়াঙ্ক স্পষ্ট করে দিয়েছেন হিজাব নিষেধাজ্ঞা বিল বা ধর্মান্তরকরণ বিরোধী বিলের মতো সব বিতর্কিত আইনই তাদের রাডারে আছে।

এর ঠিক আগেই আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংগঠন অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনালের ভারতীয় চ্যাপ্টারের পক্ষ থেকে দাবি জানানো হয়েছিল, কর্ণাটকে নতুন সরকারের ‘অগ্রাধিকার’ হওয়া উচিত রাজ্যের তিনটি বিতর্কিত বিল প্রত্যাহার করা।

অ্যামনেস্টি ইন্ডিয়ার পক্ষ থেকে একটি পোস্টে বলা হয়,‘স্কুল-কলেজে মুসলিম মেয়েদের হিজাব পরে যাওয়ার ওপর যে নিষেধাজ্ঞা আছে তা অবিলম্বে তুলে নেওয়া হোক।’

এই নিষেধাজ্ঞার ফলে মুসলিম ছাত্রীরা একদিকে তাদের মতপ্রকাশ ও ধর্মাচরণের অধিকার ও অন্য দিকে শিক্ষার অধিকার– এই দুটোর মধ্যে একটা বেছে নিতে বাধ্য হচ্ছে বলেও অ্যামনেস্টির পক্ষ থেকে মন্তব্য করা হয়। এর পরই কংগ্রেসের পক্ষ থেকে বিবৃতি দিয়ে জানানো হয়, রাজ্যের ভাবমূর্তিকে ক্ষতিগ্রস্ত করছে, এমন সব বিলই তারা পুনর্বিবেচনা

মন্তব্য করুন:

সর্বাধিক পঠিত