• NEWS PORTAL

  • বুধবার, ০৮ ফেব্রুয়ারি ২০২৩

ঘুষ ছাড়া ফাইল নড়ে না বরিশাল সাব রেজিস্ট্রি অফিসে

শাহীন হাসান, বরিশাল

প্রকাশিত: ১৬:২১, ২৭ নভেম্বর ২০২২

ফন্ট সাইজ
ঘুষ ছাড়া ফাইল নড়ে না বরিশাল সাব রেজিস্ট্রি অফিসে

সংগৃহীত ছবি

দলিল রেজিষ্ট্রি করতে পদে পদে ঘুষ দিতে হয় বরিশাল সাব রেজিষ্ট্রি অফিসে। রেজিষ্ট্রি করা ছাড়াও নকল কপি তুলতে ঘুষ, ভিজিট কমিশনে গেলে ঘুষ, দলিল পাওয়ার অফ অটর্নিতে ঘুষ, রদ ও রহিদে ঘুষ এমকি বায়না চুক্তিতে ঘুষ দিতে হয়। এক কথায় ঘুষ ছাড়া কোন কাজই হয় না এই অফিসে। আর এ টাকার ভাগ পান পিওন থেকে শুরম্ন করে জেলা রেজিষ্ট্রার পর্যনত্ম। আর ঘুষ বানিজ্যের এ প্রক্রিয়াগুলো হয়ে থাকে অফিস পিয়ন, রেকর্ড কিপার ও দলিল লেখকদের মাধ্যমে। অভিযোগ রয়েছে কমিশনে সাব রেজিষ্ট্রার এর নিজের জাওয়ার কথা থাকলেও সেখানেও যাচ্ছে পিওন। 

 


বরিশাল সাব রেজিষ্ট্রি অফিসে রেজিষ্ট্রি করতে টিপ সহি নেয়ার নিয়ম অফিস সহকারি নাদিয়া সুলতানার। কিন' তিনি ঘুষ গ্রহনে স্বচ্ছন্দ না হওয়ায় তার কাজ করানো হচ্ছে পিওন জাহাঙ্গীর হোসেনকে দিয়ে। আর তিনি প্রকাশ্যেই নিচ্ছেন ঘুষের টাকা। ভিজিট কমিশনে গিয়েও অতিরিক্ত অর্থ হাতিয়ে নিওয়া হচ্ছে তার মাধ্যমে। গোপনে মোবাইলে ধারনকৃত ঘুষ গ্রহণের ফুটেজ আছে বাংলাভিশনের কাছে। এ বিষয়ে জানতে চাইলে অফিস সহকারি নাদিয়া সুলতানা ও পিওন জাহাঙ্গীর দাবি করেন তারা একে অপরকে সাহায্য করছেন। 

ভুক্তভোগিরা অভিযোগ করেন, রেজিষ্ট্রি অফিসের ৩য় তলায় দলিল সার্স দিতে অতিরিক্ত টাকার পাশাপাশি দলিলের নকল তুলতে গেলে রেকর্ড কিপার নিয়ে থাকেন অতিরিক্ত ৩শ ৫০টাকা। দলিল লেখকরা জানান, ব্যাংকে সাড়ে ৭ পার্সেন্ট এর বাইরে আদায় করা হয় সর্বোচ্চ অতিরিক্ত ১০পার্সেন্ট পর্যন্ত। আর অতিরিক্ত অর্থের মধ্যে সাফ কবালা দলিলের ক্ষেত্রে ১ থেকে ৫লাখ টাকা পর্যন্ত ১হাজার টাকা, ১০লাখে .৩৫ পার্সেন্ট, ৩০লাখে ৩০পার্সেন্ট, ৫০লাখে ২৫পার্সেন্ট এবং তার উপরে ২০ পার্সেন্ট টাকা ঘুষ নেয় রেজিষ্ট্রি অফিস। এ ছাড়া হেবার ঘোষনাপত্র দলিলের ক্ষেত্রে সর্বোচ্চ ঘুষ নেয়া হয় ১৫পার্সেন্ট পর্যন্ত। 
ভক্সপপ- অভিযোগ কারি কয়েকজন।

দায়ি ব্যক্তিরা টাকার ভাগ নেয়ার বিষয়গুলো অস্বিকার করলেও ক্যামেরার সামনে কথা বলতে চাননি জেলা রেজিষ্ট্রার। রেকর্ড কিপার মাহাবুব আলম এনসান, সাব রেজিষ্ট্রার ইউসুফ আলী মিয়া, বরিশাল জেলা রেজিষ্ট্রার পথিক কুমার সাহা অভিযোগ অস্বীকার করেন।

বরিশাল সাব রেজিষ্ট্রি অফিসের এসব অনিয়ম চলছে শুরু থেকেই। এ বিষয়ে মুঠো ফোনে কথা বলতে রাজি না হয়ে এই প্রতিবেদককে ঢাকায় গিয়ে কথায় বলতে বলেন নিবন্ধন অধিদপ্তর এর প্রধান মহা পরিদর্শক, নিবন্ধন শহীদুল আলম ঝিনুক। 

মন্তব্য করুন: