• বৃহস্পতিবার, ২০ জানুয়ারি ২০২২ | ৭ মাঘ ১৪২৮

BVNEWS24 || বিভিনিউজ২৪

শীতের পোশাক ব্যবহারে যেসব বিষয় মাথায় রাখা জরুরি

প্রকাশিত: ১৮:১২, ২৭ নভেম্বর ২০২১

ফন্ট সাইজ
শীতের পোশাক ব্যবহারে যেসব বিষয় মাথায় রাখা জরুরি

দরজায় কড়া নাড়ছে শীত। সময় এসেছে শীতের পোশাকগুলো আলমারি থেকে বের করার। তবে সেগুলো ব্যবহারের আগে দরকার কিছু প্রস্তুতির। চলুন জেনে নেই।

১. উলের তৈরি পোশাক সোয়েটার বা মাফলার দোকানে না দিয়ে বাড়িতে ধোওয়াই ভালো। বিশেষ লিক্যুইড ব্যবহার করতে পারেন, যাতে উলের পোশাক ভালো থাকে। ধোওয়ার পর এমন জিনিস কড়া রোদে শুকোতে দেবেন না। তাতে রং চটে যায়।  

২. অনেকেই লেদারের জ্যাকেট পরতে ভালোবাসেন। তার যত্নও সেভাবে নিতে হয়। বছরের সবসময়ই এর খেয়াল রাখতে হয়। এমনিতে ঠান্ডা জায়গায় রাখবেন। মাঝে মধ্যে হালকা রোদে দিয়ে ব্রাশ করে নিতে পারেন। 

৩. লেদারের বা অন্য জ্যাকেটের আরেকটি সমস্যা থাকে। জিপের সমস্য। অনেকদিন আলমারি বা দেরাজে থাকার ফলে জিপের চেন জ্যাম হয়ে যায়। মোম বা তেল দিয়ে একটু ঘষে নিলে ঠিক হয়ে যায়। 

৪. শীতের এই সময় লেপ, কম্বল ও কাঁথার কদর বেশি। এগুলির বিশেষ খেয়াল রাখতে হয়। মোটা কম্বল, লেপ সপ্তাহে একবার রোদে দিয়ে নেবেন। চাইলে লাঠি দিয়ে পিটিয়ে নিতে পারেন। কাঁথার ক্ষেত্রেও তা করবেন। লেপ, কম্বল ও কাঁথার কভারগুলি সার্ফের পানিতে চুবিয়ে দেবেন। তা কিছুক্ষণ রেখে দেবেন। তারপর কেঁচে নেবেন। এতে ময়লা তাড়াতাড়ি পরিষ্কার হয়। তবে হ্যাঁ, শীতের পোশাক ঘন ঘন ধোবেন না। এতে নষ্ট হওয়ার সম্ভাবনা বেশি থাকে।

৫. উলের তৈরি যেকোনো গরম কাপড় একটানা তিন থেকে চার দিন ব্যবহার করা উচিত নয়। এতে ত্বকে নানান ধরনের অ্যালার্জি হয়। এসব কাপড় কাচার জন্য বাজারে বিশেষ ডিটারজেন্ট পাওয়া যায়। সেসব ব্যবহার করে ঠান্ডা পানিতে ধুয়ে ফেলুন। ধোয়ার সময় পানিতে লেবুর রস বা ভিনেগার দিতে পারেন। এতে রং ঠিক থাকে। কাচার পর কড়া রোদে শুকাতে দেবেন না।
 

বিভি/এএন

মন্তব্য করুন: